‘হক্কানি আলেমরা এগিয়ে আসুন, ভাস্কর্য হারাম নয় সেটা জাতিকে বলুন’: মুক্তিযু’দ্ধ বি’ষয়ক মন্ত্রী

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : ডিসেম্বর 2, 2020 12:57:52 অপরাহ্ন
0
7
ভিউ

সারাদেশ: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপন নিয়ে সৃষ্ট অস্থিরতা বি’ষয়ে হক্কানি আলেমদের ঈমানি দায়িত্ব পালন করার করার আহ্বান জানিয়েছেন মুক্তিযু’দ্ধ বি’ষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, ‘হক্কানি আলেমরা নায়েবে রাসুল হিসেবে এগিয়ে আসুন, সঠিক কথা বলুন, আপনারা নীরব থাকবেন না। ভাস্কর্য ইসলামে হারাম নয়, সেটা জাতিকে বলুন। যারা আলেম সমাজ, তারা যদি কথা না বলে, মানুষ ধরে নেবে ইসলাম জ’ঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয়। সুতরাং হক্কানি আলেমদের এগিয়ে আসতে হবে।’ বুধবার (২ ডিসেম্বর) দুপুর পৌনে ১২টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত নাট্যজন আলী জাকের ও ফুটবলার বাদল রায় স্মরণে শো’কসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘পৃথিবীর সব মু’সলিম দেশে ভাস্কর্য রয়েছে। এমনকি তিনটি ইসলামিক রাষ্ট্র- ইরান, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে প্রচুর ভাস্কর্য রয়েছে। স’রকারকে অনুরোধ করবো, পৃথিবীর সব মু’সলিম অধ্যুষিত দেশের ভাস্কর্য টেলিভিশনের মাধ্যমে জনগণকে দেখানো হোক। দূ’তাবাসের মাধ্যমে সব ভাস্কর্যের ছবি সংগ্রহ করে প্রচার করা হোক। তাহলে মানুষ আসল ঘটনা বুঝবে।’ তিনি বলেন, ‘ধর্ম ব্যবসায়ীদের বি’ষদাঁত উপড়ে ফেলতে হবে। কয়েকজন ব্যক্তির কাছে ধর্ম লিজ দেওয়া হয় নাই।

হক্কানি আলেমরা আপনারা কথা বলুন। না হয় ধর্ম ব্যবসায়ীরা আরো সুযোগ পাবে। কত জায়গায় ভাস্কর্য আছে, এতদিন কেউ কিছু বলেনি। হঠাৎ তারা এটা নিয়ে কথা বলছে। তাদের ধৃষ্টতা কতটুকু হয়েছে। তাও করিমুদ্দিন সলিমুদ্দীনকে নিয়ে নয়, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ধৃষ্টতা দেখিয়েছে, তাদের বি’ষদাঁত উপড়ে ফেলার সময় এখনই।’ মুক্তিযু’দ্ধ মন্ত্রী আরো বলেন, ‘তাদের এজেন্ডা কী? এজেন্ডা একটাই। যখন তারা দেখলো, শেখ হাসিনা সফলভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন, তখন তারা এ ইস্যু সামনে নিয়ে আসলে। যখন আজ জাতির অস্তিত্ব মুক্তিযু’দ্ধের চেতনা হু’মকির মুখে।

সংবিধানে আ’ঘাত এসেছে। আসুন আমরা এক হয়ে লড়াই করি। বঙ্গবন্ধুর স’ন্তানরা এক হয়ে তথাকথিত ধর্ম ব্যবসায়ী অপশক্তির বি’রুদ্ধে লড়ি। তারা বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে যে কথা বলেছে, অমার্জনীয় অ’পরাধ করেছে। যদি বক্তব্য প্রত্যাহার না করে, তাহলে কী করতে হবে, জানা আছে। সতর্ক হয়ে যান।’ এসময় বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের উপদেষ্টা চিত্ত রঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন লায়ন গণি মিয়া বাবুল, এমএ করিম, মুক্তিযো’দ্ধা শফিকুল বাহার টিপু ও অরুন স’রকার রানা প্রমুখ। সূত্রঃ কালের কণ্ঠ