সারাদেশঃ ক’রোনায় আ’ক্রান্ত রূপসা উপজে’লার স্বাস্থ্য কর্মী শাহারুল ইসলাম ২৩ এপ্রিল থেকে উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোয়াটারে আইসোলেশনে রয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা. রিজভির প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ও’ষুধ খাচ্ছেন তিনি। তিনি জানালেন, ‘প্রতিদিন জি ম্যাক্স ৫০০ এমজি, নাপা এক্সট্রা ও মন্টিয়ার ও’ষুধ খাই। সেই সাথে আদা ও লেবু দিয়ে গরম পানি গড়গড়া করছি। চা ও গরম দুধ খাচ্ছি।’

শাহারুল ইসলামের সংস্পর্শে এসে গত ২৮ এপ্রিল ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হন রূপসা উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নৈ’শপ্র’হরী আল মামুন মৃধা। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোয়াটারে আইসোলেশনে থাকা মামুন জানালেন, ‘তার ১০০ ডিগ্রি জ্বর, গ’লায় ব্যথা ও সর্দি আছে। তিনি উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আনিসুর রহমানের পরামর্শ অনুযায়ী সকালে ও রাতে খালি পেটে এজিথ্রোমাইসিন ৫০০ এমজি ট্যাবলেট, তিন বেলা ৩টি প্যারাসিটামল এবং সকালে ও রাতে ভরা পেটে সিটিরিজিন ট্যাবলেট খাচ্ছি। এছাড়া গ্যাসের সমস্যা থাকায় তিন বেলা ভরা পেটে অ্যান্টাসিড খাচ্ছি।’

এই ২ জনের মতো খুলনায় ক’রোনা আ’ক্রান্ত অন্যান্য রো’গীদের চিকিৎসা সেবা চলছে ৩/৪ প্রকার ও’ষুধ ও গরম পানির ভাপ দিয়ে। সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, খুলনা জে’লায় এ পর্যন্ত ৬৭৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ জনের ক’রোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। রূপসা উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিচ্ছন্নতাকর্মী নাজনিন নাহার জানান, তিনি চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তিন বেলা তিনটি প্যারাসিটামল, সকালে ও রাতে হিস্টাসিন এবং সকালে ও রাতে এজিথ্রোমাইসিন ৫০০ এমজি ও’ষুধ খাচ্ছেন। তিনি উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোয়াটারে আইসোলেশনে রয়েছেন।

রূপসা উপজে’লা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আনিসুর রহমান জানান, ক’রোনা ভাই’রাসের এখনও কোনো ও’ষুধ বের হয়নি। তবে ক’রোনা আ’ক্রান্তদের সাধারণত জ্বর, সর্দি-কাশি, গ’লাব্যথা ও শ্বাসক’ষ্ট হচ্ছে। সে কারণে কেউ ক’রোনা আ’ক্রান্ত হলে তাকে অবস্থা বুঝে এজিথ্রোমাইসিন বা জি ম্যাক্স ৫০০ এমজি, নাপা বা নাপা এক্সট্রা বা প্যারাসিটামল এবং হিস্টাসিন বা সিটিরিজিন বা মন্টিয়ার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া গরম পানি গড়গড়া করা কিংবা নাকে-মুখে গরম পানির ভাপ নেওয়ার জন্যও পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি।

খুলনার সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ জানান, ক’রোনা আ’ক্রান্ত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩ জন চিকিৎসক বর্তমানে ঢাকার মুগদা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে ডা. মাসুদ আহমেদ এখনও অ’সুস্থ্য, অন্য ২ জনের অবস্থা মোটামুটি ভালো। সিভিল সার্জন বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং আইইডিসিআর এর নির্দেশনা অনুযায়ী চিকিৎসা করা হচ্ছে।

গত ১৪ এপ্রিল ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হন নগরীর করিমনগর এলাকার বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা আজিজুর রহমান। তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিদিন সকালে ও রাতে একটি করে অ্যান্টিবায়োটিক জি ম্যাক্স এবং ৩ বেলা তিনটি নাপা, কোনো কোনো দিন ৪টি নাপাও খেয়েছেন। এছাড়া যথারীতি ডায়াবেটিস ও প্রেসারের ও’ষুধ খেতেন। দিনে ২/৩ বার গরম পানির বাষ্প নাকে-মুখে টানতেন। গরম পানির ভাপ নিলে তখন তার কাশি কমে যেত, শরীরও ভালো লাগতো। তিনি জানান, গত ২০ এপ্রিল এবং ২২ এপ্রিল দুই দফায় তার নমুনা পরীক্ষার পর ফলাফল ক’রোনা নেগেটিভ এসেছে। চিকিৎসক তাকে ৪ মে পর্যন্ত হোম আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ জানান, ক’রোনা আ’ক্রান্ত প্রত্যাশা আবাসিক এলাকার পুলিশ সদস্য আলী আজম খানের শ্বাসক’ষ্ট দেখা দেওয়ায় তাকে ২৭ মার্চ বিকালে খুলনা ক’রোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ক’রোনা আ’ক্রান্ত খুলনা মেডিকেল কলেজের নার্স শীলা রানী দাস, নগরীর মহেশ্বরপাশা কালিবাড়ি এলাকার বি’ষ্ণু দাস এবং রূপসা উপজে’লার দেয়াড়া গ্রামের বৃ’দ্ধা জরিনা বেগমকে ৩০ এপ্রিল রাতে ক’রোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তাদের কাউকে এখনও আইসিইউতে রাখার প্রয়োজন হয়নি।

ক’রোনা আ’ক্রান্ত রূপসা উপজে’লার রাজাপুর গ্রামের মোবাইল সার্ভিসিং প্রকৌশলী নূর আলম খান গত ২১ এপ্রিল মা’রা যান। তার স্ত্রী ক’রোনা নেগেটিভ হলেও তার ২ ছেলে ফাহিম (১৪) ও মাহিম (৩) ক’রোনা পজেটিভ। তারা বাড়িতেই চিকিৎসাধীন রয়েছে। নূর আলমের স্ত্রী মানসুরা আকতার স্বপ্না জানান, ২ ছেলের শা’রীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। তাদের এখন আর জ্বর-কাশি নেই। বাচ্চা ২ জনের কারও ও’ষুধ খাওয়া লাগছে না।

Leave a comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।