ব্যাংকের ভল্টেও ঢুকে পড়েছিল তিন চোর

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : নভেম্বর 15, 2021 09:41:55 পূর্বাহ্ন
0
8
views
প্রতিকী ছবি

সারাদেশ: ব্যাংকের সাপ্তাহিক ছুটির দিন ছিল শুক্র ও শনিবার। ব্যাংকটির উপশাখা ছিল তালাবদ্ধ। রাতে বাইরে নিরাপত্তা প্রহরাও ছিল না। এই সুযোগে তিন চোর হা’না দেয় ব্যাংকে। ভবনের সামনে সাইনবোর্ড লাগানোর স্থানে শাবলের আ’ঘাতে দেয়াল ভে’ঙে ফে’লে তারা। ভোরে তারা ঢুকে পড়ে ফাঁকা ব্যাংকে। এরপর একটি ভল্টের তালাও ভাঙে। তবে বিপত্তি বা’ধায় সিসি ক্যামেরা।

সদর দপ্তরে বসে তিন চোরের ভল্ট থেকে টাকা লু’টের চেষ্টা দেখে ফে’লেন নিরাপত্তা বিভাগের কর্মীরা। তাঁরা দ্রুত ফোন দেন জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ। আর যায় কোথায়, পুলিশ এসে হাজির চোরের কাছে। ঘটনাস্থলেই ধরা চোর সর্দার। অন্য দুজন পা’লিয়ে গেলেও ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তারাও পুলিশের হাতে গ্রে’প্তার হয়েছে।

রাজধানীর বাড্ডায় আইএফআইসি ব্যাংকের উপশাখায় ঘটেছে এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা। গত শনিবার ভোরে বাড্ডা থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকেই হৃদয় (২০) নামের একজনকে গ্রে’প্তার করে। পরে গতকাল রবিবার রুবেল (২১) ও মামুন (২০) নামে তার দুই সহযোগীও পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এ ঘটনায় শনিবার বাড্ডা থানায় মা’মলা করেছে আইএফআইসি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। ওই মা’মলায় গতকাল ঢাকা মহানগর হাকিম আ’দালত তিনজনের দুই দিন করে রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, তিনজন ব্যাংকের ভল্ট ভাঙলেও টাকা নিতে পারেনি। হাতেনাতে ধরা পড়ায় চু’রির উদ্দেশ্য সফল হয়নি। আ’সামিদের জি’জ্ঞাসাবাদে বিস্তারিত জানা যাবে। পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) আসাদুজ্জামান বলেন, এই চ’ক্রে আর কেউ আছে কি না, সেটা ত’দন্ত করে দেখা হচ্ছে।

ত’দন্তের ব্যাপারে বাড্ডা থানার পরিদর্শক (ত’দন্ত) নূরে আলম মাসুদ সিদ্দিকী বলেন, ‘আমাদের টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ব্যাংকের ভেতর থেকে হৃদয়কে ধরে ফে’লে। এরপর তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রুবেল ও মামুনকে গ্রে’প্তার করা হয়। তারা সবাই পেশাদার চোর, থাকে মহাখালীর সাততলা বস্তিতে।’