বিচ্ছেদের পরও প্রাক্তনের সঙ্গে ‘বন্ধুত্ব’ রাখতে চাইলে যা যা খেয়াল রাখবেন

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : নভেম্বর 9, 2021 11:20:26 পূর্বাহ্ন
0
12
views

লাইফস্টাইল: জীবনে একাধিকবার প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন প্রায় সকলে। কিছু সম্পর্ক বহু বছর টিকে যেতে পারে, কিছু সম্পর্কের সময়কাল কয়েক মাসেই থেমে যায়। একটা সময় জুড়ে আর একজন মানুষকে চেনা, তাঁর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়া, নিজের ভালো-খা’রাপ সবটুকু নিয়ে তার সামনে মেলে ধরতে অনেক সাহস লাগে। একটা বিপুল ভরসার জায়গা, ভালোবাসার জায়গা না পেলে সেই গভীরতায় অনেকেই যেতে পারেন না।

কিন্তু যখন এই সম্পর্কগু’লি ভে’ঙে যায়? যখন হঠাৎ করে এক দিন সকালে উঠে সেই ভালোবাসার মানুষটিকে আর ‘নিজের’ বলা যায় না, ওই মুহূর্তগু’লির বিহ্বলতা হয়তো কমবেশি সকলকেই তাড়া করেছে কখনও না কখনও। কিছু কিছু ক্ষ’ত সারা জীবন থেকে যায়, আবার কিছু ক্ষ’ত হালকা হয়ে এলেও মাঝেমধ্যেই অনুভূতির মধ্য দিয়ে নিজের অস্তিত্বের জানান দেয়। অনেক সময়ে এই বিচ্ছেদগু’লি খুব অজান্তে হয়ে যায়। হঠাৎ এক দিন দু’জনে বুঝতে পারেন যে তাঁর মা’নসিকভাবে একে অপরের থেকে অনেকটা দূরে সরে গিয়েছেন।

কোনো অ’পমান নয়, বা এক জনের কোনো ধরনের খা’রাপ আচরণও নয়, অনেক সময়েই একটা অদ্ভুত নাম-না-জানা দূরত্ব চলে আসে দু’জনের মধ্যে। এই দূরত্বগুলো দূরে সরিয়ে দেয় সম্পর্কে থাকা মানুষদের, সেই থেকে বাসা বাঁধে ক্লান্তি, সেই থেকে বিচ্ছেদ। কিন্তু ওই মন খা’রাপ, বা তার থেকেও বেশি ওই শূন্যতার অনুভূতি কাটিয়ে ওঠার পরে সেই প্রাক্তনের সঙ্গে অনেকেই আর যোগাযোগ রাখতে চান না। ভ’য় থাকে আবার ক’ষ্ট পাওয়ার। কিন্তু সেই ভ’য়ের কারণে যদি আপনি একজন বন্ধুকে হা’রিয়ে ফে’লেন, তখন কি এই খা’রাপ লাগাগু’লি অতটা যুক্তিযুক্ত বলে মনে হয়?

তাহলে জেনে নিন বিচ্ছেদের পরও প্রাক্তনের সঙ্গে বন্ধুত্ব বজায় রাখতে চাইলে কোন কোন বি’ষয় মাথায় রাখতে হবে-

নিজেকে সময় দিন

বিচ্ছেদের পরের কিছু দিন অত্যন্ত কঠিন বলে মনে হয় সকলেরই। সেই মুহূর্তগু’লি অনেক সময়েই মা’নসিক শান্তিতে ব্যাঘাত ঘটায়। নিজেকে সময় দিন, পারলে কোথাও কয়েক দিনের জন্য বেড়াতে যান। নতুন জায়গা দেখলে, নতুন মানুষের সঙ্গে দেখা করলে আপনার মা’নসিক অস্থিরতা কমতে পারে।

প্রাক্তনের সঙ্গে শান্ত ভাবে কথা বলুন

কোনো সম্পর্ক ভে’ঙে গেলে অনেক খা’রাপ লাগা, রাগ, অভিমান দানা বাঁধে মনের মধ্যে। তাই কিছু দিন নিজেকে সময় দিয়ে চেষ্টা করুন আবার সেই মানুষটার সঙ্গে একটা কথোপকথনে আসার। একে অপরকে বোঝার চেষ্টা করুন, শান্ত ভাবে কথা বলে খা’রাপ লাগাগু’লি ব্যক্ত করুন, সামনের জনের খা’রাপ লাগাগু’লি শুনুন। যাতে ওই খা’রাপ লাগা, অভিমানগু’লির তীব্রতা কিছুটা হলেও কমে যেতে পারে।

সৎ থাকুন

যেই মানুষের সঙ্গে আপনি একটা বড় সময় জুড়ে সম্পর্কে ছিলেন, তিনি সম্ভবত আপনাকে অনেকটাই চেনেন। সেই সম্পর্কটা আর নেই ঠিকই। কিন্তু যদি আপনি তার সামনে কোনো রকম ভনিতা করেন বা অন্য রকম মানুষ হওয়ার চেষ্টা করেন, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সেটা আরও অস্বস্তির কারণ হয়ে উঠতে পারে। সব কিছু সহজ করাই যদি লক্ষ্য হয়, তা হলে সেই সততার জায়গা থেকে সরে আসবেন না।

নিজেদের পরিধির ব্যাপারে সচেতন থাকুন

সম্পর্কে থাকাকালীন অনেক সময়ই দু’জনের একে অপরের প্রতি এক ধরনের অধিকারবোধ জন্মে যায়। কিন্তু বিচ্ছেদের পরে সেই একই ধরনের ঘনিষ্ঠতা থেকে যাওয়া কঠিন। তাই কিছু বি’ষয়ে আপনার এবং তাঁর নিজস্ব পরিধির ব্যাপারে ওয়াকিবহাল থাকাই ভালো। মা’নসিক সুস্থতার জন্য তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে।

প্রাক্তনের অনুপস্থিতিতে তার বি’ষয়ে কথা বলবেন না

বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছে বলেই রাগ বা খা’রাপ লাগা থেকে আরও পাঁচজনকে আপনার প্রাক্তনের ব্যাপারে কিছু বলা কখনোই শ্রেয় নয়। যদি আপনি একটা বন্ধুত্বের সম্পর্কে আসতে চান, তাঁর আত্মমর্যাদার সম্মান করাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ওই যে সম্পর্কে ভরসার জায়গাগু’লি, সম্পর্ক ভে’ঙেছে বলে সেটা ফে’লে দেওয়ার তো কোনো মানে হয় না। সম্পর্ক থাকুক বা না থাকুক, এই সম্মানের জায়গাটা সব সময়েই একটা সুস্থতার লক্ষণ।