ওরা পৃথিবীতে এসেছিল একসঙ্গে, ছেড়েও গেল একসঙ্গে

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : নভেম্বর 8, 2021 02:00:21 অপরাহ্ন
0
21
views

সারাদেশ: বাথরুমে বালতির পানি নিয়ে খেলছিল দুই মেয়ে। স’ন্তানদের খেলতে দেখে ফ্ল্যাটের বাইরে ময়লা ফেলতে গেলেন মা। দু-তিন মিনিট পর ফিরে এসেই দেখেন আদরের মেয়ে দুটি আর বেঁচে নেই। বালতিতে ডুবে রয়েছে তাদের মাথা আর পা বাইরে। শি’শু দুটি বালতির পানিতে ডুবে মা’রা গেছে বলে ধারণা তাদের নানার। রোববার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজে’লার পুরাতন সিএনবি ঘাট এলাকায় একটি ভাড়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মৃ’তরা হলো- সিএনবি ঘাট এলাকার পুলিশের কনস্টেবল এবাদ আলীর মেয়ে সারা ও সাবা। তাদের বয়স তিন বছর।

শি’শুদের মা ও নানা জানান, বাথরুমে পানি দিয়ে খেলছিল সারা ও সাবা। একপর্যায়ে তারা বালতিতে পড়ে যায় বলে ধারণা করা হচ্ছে। সারা ও সাবার বাবা কনস্টেবল এবাদ আলী ঢাকায় থাকেন। ওই বাড়িতে দুই মেয়েকে নিয়ে একাই থাকতেন তাদের মা। তবে কাছেই সারা-সাবার নানা ও দাদার বাড়ি। শি’শুদের নানা মাজেদুল ইসলাম জানান, মাসখানেক আগে এ বাড়ির দোতলায় দুই রুম ভাড়া নেন তার মেয়ে। তার মেয়ের জামাই ছুটিতে ঢাকা থেকে সেখানে যেতেন।

শি’শুদের মা নাইমা খাতুন জানান, এ বাড়িতে পানি সং’কট হয় প্রায়ই। তাই যখন পানি আসে তখন তিনি বালতি ভরে রাখেন। তিনি জানান, সকালে মেয়েরা বাথরুমে গিয়ে বালতির পানি নিয়ে খেলছিল। তাদের সেখান থেকে সরে আসতে বলে ফ্ল্যাটের বাইরে ময়লা ফেলতে যান তিনি। দু-তিন মিনিট পর ফিরে এসেই দুই বালতিতে দুই মেয়ের মাথা ডুবে থাকতে দেখেন। পা ছিল বালতির বাইরে। নাইমা আরো জানান, তিনি বাচ্চাদের তুলে মেঝেতে শুইয়ে রেখে তাদের নানা-নানিকে খবর দেন। পরে সবাই তাদের সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃ’ত ঘোষণা করেন। তিনি আরও বলেন, ওরা পৃথিবীতে একসঙ্গে এসেছিল। আবার ছেড়েও গেল একসঙ্গে। যা করত সবই একসঙ্গেই করতো।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক নুরুন্নাহার নাসু বলেন, শি’শু দুটি মৃ’ত অবস্থায় সকাল ৯টার দিকে হাসপাতালে আনেন স্বজনরা। স্বজনদের ভাষ্য অনুযায়ী শি’শু দুটি বালতির পানিতে ডুবে মা’রা গেছে। তবে ম’য়নাত’দন্তের আগেই মৃ’ত্যুর কারণ সম্পর্কে বলা যাবে না। শি’শুটির বাবা ঢাকা থেকে আসছেন। এরপর ম’য়নাত’দন্তের সিদ্ধান্ত হবে।