গু’লিবিদ্ধ কক্সবাজার শ্র’মিকলীগের সভাপতি জহির সিকদার মা’রা গেছেন

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : নভেম্বর 7, 2021 02:13:56 অপরাহ্ন
0
19
views

সারাদেশ: দুবৃর্ত্তদের গু’লিতে গু’লিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা গেলেন কক্সবাজার জে’লা শ্র’মিকলীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম সিকদার। আজ রোববার (৭ নভেম্বর) দুপুর ১২ টা ৪৫ মিনিটে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মা’রা যান। বি’ষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালে থাকা জহিরুল ইসলামের স্বজন কক্সবাজার জে’লা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক কফিল উদ্দিন রিপন।

এর আগে গত শুক্রবার (৫ নভেম্বর) রাত সোয়া ১০ টার দিকে কক্সবাজারের প্রবেশমূখ লিংকরোডে দু’র্বৃত্তের গু’লিতে জে’লা শ্র’মিকলীগ সভাপতি জহিরুল ইসলাম সিকদার ও তার ভাই ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সদস্য প্রার্থী বর্তমান মেম্বার কুদরত উল্লাহ সিকদারকে একদল দু’র্বৃত্ত মোটর সাইকেল যোগে লিংকরোডস্থ কুদরত উল্লাহর অফিসের সামনে এসে অতর্কিত গু’লি করে পালিয়ে যায়।

তাদের উ’দ্ধার করে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে অবস্থার অ’বনতি হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয় জহিরুল ইসলাম ও কুদরত উল্লাহকে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান জহিরুল ইসলাম। স্থানীয় সূত্র জানায়, লিংকরোডে কুদরত উল্লাহ তার ব্যক্তিগত অফিসে বসে জে’লা শ্র’মিকলীগের সভাপতি ও তার বড় ভাই জহিরুল ইসলামসহ নেতাকর্মীদের সাথে নির্বাচনের বি’ষয়ে কথা বলছিলেন। এসময় মোটর সাইকেল নিয়ে একদল লোক এসে অফিসের ভেতরে গু’লি করে পালিয়ে যায়। অপর সুত্র বলছে, দু’র্বৃত্তরা সিএনজি অটোরিক্সা নিয়ে এসে গু’লি করে দ্রুত পালিয়ে গেছে।

আ’হতদের বরাত দিয়ে জে’লা শ্র’মিকলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল্লাহ আনসারী বলেন, পূর্ব শ’ত্রুতার জের ধরে একই ওয়ার্ডের অপর মেম্বার প্রার্থী লিয়াকত ও তার স’ন্ত্রাসী বাহিনী মোটর সাইকেল নিয়ে এসে জহির ও কুদরতকে গু’লি করে পালিয়ে যায়। এতে কুদরত উল্লাহ হাতের একটি আঙ্গুল ছিড়ে গেছে। তার বুকে ও পেটে চারটি গু’লির ক্ষ’ত রয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। তার অবস্থা আশংকাজনক। তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, লিংকরোড বনফুল রেষ্টুরেন্টের সামনে দু’র্বৃত্তরা হঠাৎ এসে প্রথমে তাদের দুজনকে টার্গেট করে ক’কটেল নি’ক্ষেপ করে। এতে আশপাশের সাধারন মানুষ সরে যায়। ঠিক তখন তাদের দুজনের গায়ে ৩ রাউন্ড গু’লি করে দু’র্বৃত্তরা। দু’রাউন্ড ফাঁকা গু’লি করে দু’র্বৃত্তরা দ্রুত পালিয়ে যায়। উল্লেখ্য, ভোটের আগে এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনার আ’শঙ্কা করে কয়েকদিন আগে নির্বাচন কর্মকর্তাকে লিখিত অ’ভিযোগ দিয়েছিলেন কুদরত উল্লাহ সিকদার। প্রতিদ্ব’ন্দ্বি প্রার্থী লিয়াকত আলীও এমন ঘটনার আ’শঙ্কা করে পাল্টা অ’ভিযোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গেছে। সুষ্ঠু নির্বাচন প্রক্রিয়া ভন্ডুল ও দুই প্রার্থীর মধ্যে বি’রোধ লাগিয়ে দিতে তৃতীয় কোনো পক্ষ এ কাজ করেছে কিনা, ত’দন্তের দাবি করেছে।