১০ ছাত্রকে হা’তুড়ি দিয়ে পি’টিয়ে আ’হত করলেন মাদরাসা শিক্ষক

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : নভেম্বর 2, 2021 03:16:43 অপরাহ্ন
0
13
views

বরিশালের গৌরনদী উপজে’লার বার্থী উলূমে দিনিয়া কওমী মাদরাসার কেতাব বিভাগের ১০ হাফেজ ছাত্রকে হা’তুড়ি পেটা করার অ’ভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষকের বি’রুদ্ধে। সোমবার (০১ নভেম্বর) রাতে হা’তুড়ি পে’টায় আ’হত হাফেজ মো. সোয়াইব নামে কেতাব বিভাগের এক ছাত্র বা’দী হয়ে থানায় লিখিত অ’ভিযোগ দেন। এর আগে সোমবার বেলা ১১টার দিকে এ হা’মলার ঘটনা ঘটে। এতে কেতাব বিভাগের ছাত্র হাফেজ আবু ইউসুফ, হাফেজ মো. হাসানউদ্দিন, হাফেজ জাহিদুল ইসলাম, মো. হাফেজ হোসেন, হাফেজ হাফিজুর রহমান, হাফেজ মো. সোয়াইব, হাফেজ মো.হোসেন, হাফেজ হাবিবুল্লাহসহ ১০ ছাত্র আ’হত হন।

অ’ভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, বার্থী উলূমে দিনিয়া কওমী মাদরাসার নুরানী বিভাগে শিক্ষকতা করেন হাফেজ মানিক বেপারী। তিনি মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি, উপজে’লার বার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান প্যাদার ভাগ্নে হন। সেই সুবাদে মাদরাসা বিভিন্ন কার্যক্রমে মানিক বেপারী প্রভাব খাটাতেন। কেতাব বিভাগের ছাত্রদের সঙ্গে তিনি দু’র্ব্যবহার করতেন। তিনি কেতাব বিভাগের ছাত্রদের ব্যাঙ্গ করতেন।

বি’ষয়টি নিয়ে কেতাব বিভাগের ছাত্রদের মধ্যে ক্ষো’ভের সৃষ্টি হয়। ব্যাঙ্গ করে ডাকতে নিষেধ করায় মানিক বেপারী ক্ষি’প্ত হয়ে সম্প্রতি কেতাব বিভাগের ছাত্র মো. শাহজালাল ও মো. মাহামুদকে পি’টিয়ে আ’হত করেন। রোববার বিকেলে তুচ্ছ কারণে কেতাব বিভাগের ছাত্র মো. শাহ্জালালকে কিলঘু’ষি মে’রে নাক দিয়ে র’ক্ত ঝরান। মো. শাহজালালের সহপাঠীরা সোমবার সকাল ১০টার দিকে মাদরাসার মুহতামিম মুফতি হাফেজ আমিনুল ইসলামের কাছে গিয়ে এ ঘটনার বিচার দাবি করেন।

এতে মানিক বেপারী ক্ষি’প্ত হয়ে সকাল সোয়া ১০টার দিকে ক্লাসরুমে ঢুকে কেতাব বিভাগের ছাত্র মো. রফিকুল ইসলাম, মাহামুদ হোসেনকে পি’টিয়ে আ’হত করেন। এতে কেতাব বিভাগের ছাত্ররা ক্ষি’প্ত হলে শিক্ষক মানিক দৌড়ে মাদরাসার মুহতামিমের কক্ষে আশ্রয় নিলে বিক্ষু’ব্ধ ছাত্ররা তাকে আধাঘণ্টা অ’বরুদ্ধ করে রাখেন। এর কিছুক্ষণ পর কেতাব বিভাগের ছাত্ররা বিচার দিতে শিক্ষক মানিক বেপারীর মামা বার্থী গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান প্যাদার বাড়িতে যান।

এ সময় শিক্ষক মানিক বেপরী ও তার ছোট মামা যুবলীগ নেতা জাফর প্যাদার নেতৃত্বে বহিরাগত ১৫/২০ যুবক হা’তুড়ি, ব্যালচা, লা’ঠিসো’টা নিয়ে শাহ্জাহান প্যাদার বাড়িতে গিয়ে জ’ঙ্গি অ’পবাদ দিয়ে কেতাব বিভাগের ছাত্রদের ও’পর হা’মলা চা’লায়। এ সময় হা’মলাকারীরা হা’তুড়ি দিয়ে আ’ঘাত করে কেতাব বিভাগের ১০ ছাত্রকে আ’হত করেন। এতে মাদরাসায় ছাত্রদের মধ্যে উ’ত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে কেতাব বিভাগের ক্লাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ।

হা’মলার শি’কার হাফেজ আবু ইউসুফ ও হাফেজ মো. সোয়াইব জানান, শিক্ষক মানিক বেপারী ও মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহ্জাহান প্যাদা ঘটনা ভিন্নখাতে নিতে হা’মলার শি’কার ছাত্রদের বি’রুদ্ধে এখন জ’ঙ্গি তৎপরতাসহ বিভিন্ন কথা রটিয়ে বেড়াচ্ছেন। মাদরাসার মুহ্তামিম মুফতি আমিনুল ইসলাম জানান, হা’মলায় কেতাব বিভাগের ১০ ছাত্র আ’হত হয়েছেন। আ’হতদের মধ্যে হাফেজ জাহিদুল ইসলামকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । এ ঘটনায় মাদরাসার সব ছাত্রদের মধ্যে আ’তঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে অ’ভিযুক্ত শিক্ষক মানিক বেপারী বলেন, আমার বি’রুদ্ধে আনিত সব অ’ভিযোগ মি’থ্যা ও ভিত্তিহীন। কেতাব বিভাগের দুই ছাত্র বেয়াদবি করার কারণে তাদের বকাঝকা করা হয়। এতে কেতাব বিভাগের অন্য ছাত্ররা সংঘবদ্ধ হয়ে আমার মামা মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতির বাড়িতে হা’মলার চেষ্টা চালালে প্রতিরোধ করা হয়। এ ব্যাপারে গৌরনদী থানার ওসি আফজাল হোসেন জানান, বার্থী উলূমে দিনিয়া কওমী মাদরাসার কেতাব বিভাগের কয়েকজন ছাত্রকে মা’রধরের অ’ভিযোগ এনে থানায় লিখিত অ’ভিযোগ দেয়া হয়েছে। অ’ভিযোগ ত’দন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সুত্রঃ জাগো নিউজ