প্রেমিকের সহায়তায় মাকে হ ত্যা, জে লেই সন্তান প্রসব, সাত বছর পর মুক্তি

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : অক্টোবর 31, 2021 07:01:38 অপরাহ্ন
0
14
views

ইন্দোনেশিয়ার পর্যটন দ্বীপ বালিতে ২০১৪ সালে নিজের মাকে হ’’ত্যায় জ’ড়িত থাকার অ’ভিযোগে দো’ষী সাব্যস্ত হন মা’র্কিন এক নারী। ওই ঘটনায় তাকে ১০ বছরের কা’রাদ’ণ্ড দেওয়া হয়েছিল। সাত বছর জে’লে কাটিয়ে গত শুক্রবার তিনি ছাড়া পেয়েছেন। এবার তাকে যুক্তরাষ্ট্রে ফেরত পাঠানো হতে পারে।

জানা গেছে, ৬২ বছর বয়সী শেইলাকে খুব বাজেভাবে মা’রধর করে হ’’ত্যা করা হয় ২০১৪ সালে। এরপর তার দেহ স্যুটকেসে ভরে রাখা হয়েছিল। সেন্ট রেজিস বালি রিসোর্টের পাশে একটি ট্যাক্সিতে রাখা ছিল সেই স্যুটকেস।

এ ঘটনায় তখন কয়েক মাসের গর্ভবতী হেদার ম্যাক (তখন ১৯ বছর বয়স) এবং তার চেয়ে ২১ বছরের বড় প্রেমিক টমি শেফারকে আ’টক করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। হ’’ত্যাকাণ্ডের কয়েক দিন পর ঘটনাস্থল থেকে ছয় মাইল দূরের একটি হোটেল থেকে তাদের আ’টক করা হয়েছিল।

পুলিশ জানায়, হোটেলের সিসিটিভিতে দেখা গেছে, হ’’ত্যাকাণ্ডের কিছুক্ষণ আগে ওই নারীর সঙ্গে কথা বলছেন তার মেয়ে এবং মেয়ের প্রেমিক। হোটেলের লবিতে বসেই তারা কথা বলছিলেন। মহিলাকে জো’র করে হোটেলের কক্ষে নিয়ে যাওয়ার প্রমাণ পায় পুলিশ।

মাকে হ’’ত্যার ঘটনায় মেয়েকে ১০ বছরের কা’রাদ’ণ্ড দেন বিচারক। এ কাজে সহায়তা করার জন্য হেদার ম্যাকের প্রেমিক শেফারকে ১৮ বছরের কা’রাদ’ণ্ড দেওয়া হয়।

বাবা-মা দো’ষী সাব্যস্ত হয়ে কারাবরণের পরের বছর ২০১৫ সালে জন্ম নেয় স্টিলা শেফার। ইন্দোনেশিয়ার আইন অনুসারে সে তার মায়ের সঙ্গে কা’রাগারে বসবাস করেছে দুই বছর পর্যন্ত।

জানা গেছে, জে’ল থেকে ছাড়া না পাওয়া পর্যন্ত মেয়েকে অস্ট্রেলিয়ার একজন নারীর কাছে দত্তক দিয়েছেন ম্যাক। পুলিশ বলছে, মায়ের সঙ্গে সম্পর্কের টানাপড়েন ছিল ম্যাকের। সে কারণে একপর্যায়ে অঘটন ঘটিয়ে ফে’লেছিলেন তিনি।