‘ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ’ করেছেন মেয়র জাহাঙ্গীর!

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : অক্টোবর 4, 2021 12:46:08 অপরাহ্ন
0
52
views

রাজনীতি: নির্বাচন, ইশতেহারসহ নানা কিছু ছাপিয়ে এখন ক্ষমতাসীন শিবিরের আলোচনার কেন্দ্রে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। এরই মধ্যে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযু’দ্ধ নিয়ে তার ‘কটূক্তি’র ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। তাকে শো’কজও করেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। এ ইস্যুতে দুই গ্রুপ হয়ে গেছে গাজীপুর ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগে। অনেকে বিব্রতকর এ বি’ষয়ে চুপ থাকার নীতিতে আছেন। আবার কেউ কেউ তার বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জো’র দাবি তুলেছেন।

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ অনেকে এটিকে ‘ক্ষমার অযোগ্য অ’পরাধ’ বলে উল্লেখ করেছেন। মেয়র জাহাঙ্গীরকে দল থেকে ব’হিষ্কার দাবি করে সড়ক অ’বরোধ করে গত কয়েকদিন মিছিল-সমাবেশও করেছেন নেতাকর্মীরা। তারা জাহাঙ্গীরের শা’স্তি হিসেবে ব’হিষ্কার ছাড়া কিছু ভাবতে নারাজ।

তবে এতদিন গাজীপুরে দলের নেতাকর্মীরা তার বি’রুদ্ধে নামলেও এবার তাকে শো’কজ করেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। শো’কজের জবাব সন্তোষজনক না হলেই শা’স্তির মুখে পড়তে হবে মেয়র জাহাঙ্গীরকে। রোববার (৩ অক্টোবর) ‘দলের স্বার্থপরিপন্থী কর্মকাণ্ড ও সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের অ’ভিযোগে’ তাকে শো’কজ চিঠি পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ।

এর আগে শনিবার (২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ের দলীয় আড্ডায় এ নিয়ে বা’গবি’ত’ণ্ডা হয়। এসময় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, মুক্তিযু’দ্ধবি’ষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, কার্যনির্বাহী সদস্য ইকবাল হোসেন অপু ও আব্দুল আউয়াল শামীম উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও দলের পদে না থাকা তিনজন কর্মী সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, দলীয় এ আড্ডায় একজন সদস্য বি’ষয়টি উত্থাপন করেন। তিনি বলেন, ‘জাহাঙ্গীর যা বলছে, এগুলো তো ক্ষমার অযোগ্য অ’পরাধ।’ তার বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তিনি সাধারণ সম্পাদকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এসময় ওই সদস্যকে আ’ক্রমণ করে কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। উভ’য়ের বেশ বা’গবি’ত’ণ্ডা হয়। পরে উপস্থিত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

দলীয় সূত্র বলছে, এ ঘটনায় দলের সভাপতি পর্যন্ত গড়ায়। যার প্রেক্ষিতে রোববার গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমকে শো’কজ করা হয়। পাশাপাশি দলের কার্যালয়ে ওই সময়ের সিসিটিভি ফুটেজ তলব করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযু’দ্ধ নিয়ে ‘কটূক্তি’র ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ১১ মিনিট ২৩ সেকেন্ডের ভিডিওতে দেখা যায়, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযু’দ্ধ ছাড়াও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, হেফাজতের প্রয়াত নেতা জুনায়েদ বাবুনগরীর সঙ্গে তার সখ্য ও রাষ্ট্রীয় দুটি সংস্থা নিয়ে নানা আ’পত্তিকর মন্তব্য করছেন মেয়র জাহাঙ্গীর।

সেই ভিডিওতে মেয়র বলেন, ‘আমি যদি ছবি দিয়েই থাকি, আমি শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুর নিচে কারো ছবি দেইনি। আমি কোনোদিনই রাসেল সাহেবের ছবি দেই নাই, মোজাম্মেল হকের ছবিও দেই নাই। আমার নেত্রী শেখ হাসিনা।’ওই সময় অন্যজন বলেন, ‘র্টাগেট ঠিক’।

মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, ‘তোমার র্টাগেট হচ্ছে মামুন পর্যন্ত। তুমি উঠলে কুদ্দুর (কতটুকু) উঠবা। তুমি তো স্বপ্নই দেখ না। মানুষ স্বপ্ন দেখে না? মানুষ ছোট থাকতে জিগায় ডাক্তার হমু, ইঞ্জিনিয়ার হমু, চেয়ারম্যান, মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রী হমু, বলে না বাচ্চারা? তোমার র্টাগেট হয়েছে তুমি মামুনের মতো হবা। যদি পিতারে অস্বীকার করে, সে জারজ স’ন্তান হবে। মামুন প্রথমেই একজন মেয়রকে অস্বীকার করে, সে জারজ স’ন্তান তো। আমরা চাই এটা করতে, আমাদের চার-পাঁচজন কাউন্সিলর চায় উল্টো। হিসেবে এইগুলোরে মে’রে ফেলা উচিত। পৃথিবীর অন্য দেশ হলে মে’রে ফেলা হতো। চায়না হলে সঙ্গে সঙ্গে মে’রে ফেলতো। তুমি যদি ডেভেলাপের অ্যান্টিতে থাকো, যেমন- চায়নাতে ছাত্ররা যখন আন্দোলন করেছে, তখন হেলিকপ্টারে করে বোম দিয়ে মাইরালাইছে। চায়নার জাতির পিতা এ কাজ করেছে।’

এরপর তিনি বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযু’দ্ধ নিয়ে বেশ কিছু কথা বলেন। এরপর তাকে আরও বলতে শোনা যায়, ‘আমরা যদি ব্রিটিশদের সঙ্গে থাকতাম, পৃথিবীর লেটেস্ট জাতি থাকতাম। ভারতবর্ষ হিন্দুদের দিতো না, আমাদের দিতো। তারপর ভারতবর্ষ, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ হয়েছে। ব্রিটিশরা ভারত-পাকিস্তানে ভাগ করে দেয়। তারপর মু’সলমানরা আবার আলাদা চায়। তারপর আবার পূর্বপাকিস্তান ও পশ্চিম পাকিস্তানে ভাগ হয়ে যায়। যার যার স্বার্থের জন্য এ ভাগ করা হয়।’

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খানের প্রসঙ্গে ভিডিওতে বলতে শোনা যায়, ‘আজমত উল্লাহ আমারে জীবনে মা’রার লাইগা লোক কন্টাক্ট (ঠিক) করছে, সব করছে। এখন সে আমার কর্মী হইছে। নেত্রী আমারে জিগায় কী করছো? আমারে কয়দিন জিগাইছে কী করো, কেমনে সম্ভব? হেও সব জানে না! আমি তো খেলা জিতছি। আমার নেত্রী তারে ছোট করে দিয়েছে।’

ভিডিওতে জাহাঙ্গীর আরও বলেন, ‘আজকে পর্যন্ত তার (মামুন) কোনো ক্ষ’তি করিনি। আমি মন্ত্রীরে নিয়া মাথা ঘামাই না। জাহিদ আহসান রাসেল আছে না? তারে নিয়া আমি এক মিনিটও চিন্তা করি না। খালি জাস্ট শুইনা রাখো, বিশ্বাস করার দরকার নাই।’

তিনি বলেন, ‘আমি জামায়াতের সাথে চলি না? বিএনপির সাথে চলি না? অন্য পার্টি আছে না, সবার সাথেই তো কথা বলি। এই যে আমার সাথে ঘণ্টা তিনেক আগেও বাবুনগরী (হেফাজতের প্রয়াত আমির বাবুনগরী) প্রায় ৪৭ মিনিট কথা বলছে। সে আসতে চায়। আমি কথা বলছি না? ধীরাশ্রম, ঝাঝর, চান্দরা আছে ৮/১০ বিঘা, দিঘিরচালা আছে ১৬ বিঘা, তেলিপাড়াও আছে। আমার এখানে সাড়ে তিনশ বিঘা জমি আছে। এ নির্বাচনের সময়েও ১০ হাজার কোটি টাকা আনছি।’

এদিকে, ওই ভিডিও ভাইরাল হওয়ায় ক্ষো’ভে ফে’টে পড়েন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে ব’হিষ্কারের দাবি জানানো হয়।

ভিডিও ভাইরালের পর গত ২১ সেপ্টেম্বর থেকে গাজীপুরের বিভিন্ন স্থানে বি’ক্ষো’ভ ও প্র’তিবাদ সভা করছে জে’লা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এরই মধ্যে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কোথাও ঝাড়ুমিছিল, কোথাও বি’ক্ষো’ভ মিছিলসহ সড়কে টায়ার জ্বা’লিয়ে প্র’তিবাদ করেন তারা।

এছাড়া ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের টঙ্গী স্টেশন রোড, মিলগেট, চেরাগ আলী, কলেজগেট ও হোসেন মার্কেট এলাকায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ঝাড়ু নিয়ে বি’ক্ষো’ভ মিছিল করেন। ওই এলাকায় সড়ক অ’বরোধ করে টায়ারে আ’গুন দিয়ে ক্ষো’ভ প্রকাশ করেন দলের নেতাকর্মীরা।

সাতদিনের জন্য ভারত গেলেও এ ঘটনার তিনদিনের মধ্যে দেশে ফেরেন মেয়র। দেশে এসে অনুসারীদের নিয়ে প্র’তিবাদ সমাবেশও করেছেন। তবে বেশ কিছুদিন ধরে এলাকায় গেলেও সন্ধ্যা নামতেই ঢাকায় চলে আসছেন তিনি। ছুটছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের বাসায় ও অফিসে। নেতাদের বিভিন্নভাবে বুঝানোর চেষ্টা চা’লিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

অন্যদিকে গাজীপুরের গাছা থানায় মেয়র জাহাঙ্গীর আলমসহ চারজনের বি’রুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি (জি’ডি) করেছেন মহানগর তাঁতী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. জামাল খান। তিনি তার ফেসবুক আইডি থেকে ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিওটি শেয়ার করেছেন বলেও জি’ডিতে উল্লেখ করেছেন। এ নিয়ে তিনি নিজের এবং পরিবারের নিরাপত্তা শঙ্কার কথা জানান।

জামাল খান বলেন, ‘আমি থানায় জি’ডি করেছি। নিরাপত্তার স্বার্থে বর্তমানে বাইরে আছি। থানার ওসির সঙ্গে যোগাযোগ করলে জি’ডির নম্বর দিয়ে দেবে।’

তবে গাছা থানার ওসি মো. ইসমাইল হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা এমন কোনো অ’ভিযোগ বা জি’ডি পাইনি।’

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান জাগো নিউজকে বলেন, ‘বক্তব্য যেটা আসছে, এটা তো একেবারেই ক্ষমার অযোগ্য। বঙ্গবন্ধু ও মহান মুক্তিযু’দ্ধ নিয়ে কটূক্তি ও মুক্তিযু’দ্ধের শহীদদের একটা গাণিতিক হিসাব দিয়ে ৩০ লাখকে দুই লাখ বলে প্রমাণের অ’পচেষ্টা করেছেন তিনি। এ বক্তব্য অবশ্যই প্রত্যেকটি নেতাকর্মীর মনে ক্ষ’ত সৃষ্টি করেছে। সেজন্য তারা এটার বি’রুদ্ধে প্র’তিবাদ করে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে তিনি বলেছেন, এ বক্তব্য তার না। তিনি যদি প্রমাণ করতে পারেন, সেটা তার বক্তব্য না। তাহলে দেখতে হবে, এটা কে করেছে? তবে আমি তার কণ্ঠ শুনি, জানি। আমি মোটামুটি নিশ্চিত যে, এটা তার বক্তব্য।’

আজমত উল্লাহ খান বলেন, ‘আমাদের বক্তব্য স্পষ্ট, নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে তাদের বক্তব্য তুলে ধরেছেন। দলের হাইকমান্ড তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে। কেন্দ্রীয় নেতারা বিভিন্নভাবে আমাদের বক্তব্য শুনতে চেয়েছেন। আমরাও বক্তব্য জানিয়েছি। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র আছে, সে মোতাবেক নিশ্চয় দলের হাইকমান্ড সিদ্ধান্ত নেবেন।’

সার্বিক বি’ষয়ে জানতে মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মুঠোফোনে গত কয়েক দিনে বারবার কল দিয়ে ও এসএমএস পাঠিয়েও সাড়া পাওয়া যায়নি। তবে তিনি ভিডিওটির বক্তব্য তার নয় বলে নানা মাধ্যমে দাবি করে আসছেন।

জাহাঙ্গীর আলমের একাধিক অনুসারীও জাগো নিউজকে বলেছেন, ‘সামনে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও সিটি নির্বাচন। যার কারণে একটি পক্ষ মেয়রকে ঘায়েল করতে এ পথ বেছে নিয়েছে।’

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা মির্জা আজম জাগো নিউজকে বলেন, ‘দলের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে তাকে কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়েছে। ১৫ দিনের সময়ও দেওয়া হয়েছে। এখন বল তার কোর্টে দেওয়া হয়েছে। এখন সে কি ভু’ল করছে নাকি বক্তব্য তার নয় বলে অস্বীকার করে, না দুঃখ প্রকাশ করে, সেই অপেক্ষায়। তার বক্তব্যের প্রেক্ষিতে দল আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে।’