আ’দালতে বো’মা হা’মলা: জাবেদ ইকবাল ‘অনুতপ্ত’ হওয়ায় যাবজ্জীবন

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : অক্টোবর 3, 2021 06:15:30 অপরাহ্ন
0
3
views

আইন ও বিচার: ১৬ বছর আগে আ’দালতে বো’মা হা’মলার ঘটনায় দো’ষী সাব্যস্ত হলেও ‘অনুতপ্ত’ হওয়ায় নি’ষিদ্ধ ঘোষিত জ’ঙ্গি সংগঠন জামাত-উল-মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমান্ডার জাবেদ ইকবালকে যাবজ্জীবন কা’রাদ’ণ্ড দেওয়া হয়েছে। ২০০৫ সালের ২৯ নভেম্বর সকালে চট্টগ্রাম আ’দালত ভবনের পুলিশ চেকপোস্টের সামনে বো’মা হা’মলা চা’লায় জ’ঙ্গিরা।

ঘটনাস্থলে মা’রা যান পুলিশ কনস্টেবল রাজীব বড়ুয়া ও ফুটবলার শাহাবুদ্দীন। আ’হত হন পুলিশ কনস্টেবল আবু রায়হান, শামসুল কবির, রফিকুল ইসলাম, আবদুল মজিদসহ ১০ জন। দীর্ঘ ১৬ বছর পর রোববার এই মা’মলার রায় ঘোষণা করেছেন চট্টগ্রামের স’ন্ত্রাস দ’মন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুল হালিম।

রায়ে জেএমবির বো’মা বিশেষজ্ঞ প’লাতক জাহিদুল ইসলাম মিজান ওরফে বো’মা মিজানকে মৃ’ত্যুদ’ণ্ড দিয়েছেন আ’দালত। আর জাবেদ ইকবালকে যাবজ্জীবন কা’রাদ’ণ্ড দেওয়ার পাশাপাশি দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরও দুই বছরের সশ্রম কা’রাদ’ণ্ড দেওয়া হয়েছে। আ’সামিদের পক্ষে রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী মোহাম্ম’দ ইউনুস বলেন, ৩০২ ধারায় আ’সামিদের বি’রুদ্ধে অ’ভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। জাবেদ ইকবালকে যাবজ্জীবন ও অন্য আ’সামিকে ফাঁ’সির আদেশ দিয়েছে আ’দালত।

রায় ঘোষণার পাশাপাশি আ’দালত পর্যবেক্ষণও দিয়েছেন। আ’দালত বলেছেন, আ’সামি জাবেদ ইকবাল মা’মলার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বিচার কাজে সহযোগিতা করেছে। ঘটনার সময় সে ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র। ঘটনার বি’ষয়ে অনুতপ্ত ছিল বলে আ’দালতকে জানিয়েছে। তা বিবেচনায় নিয়ে তাকে যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে। পর্যবেক্ষণে আ’দালত আরও বলেন, ওই হা’মলা বহুদিনের পরিকল্পিত ঘটনা। নীলনকশার পরিকল্পনা জাবেদ ইকবাল ও জাহিদুল ইসলাম মিজানসহ আ’সামিরা বাস্তবায়ন করেছে।

রায় ঘোষণার পর জাবেদ ইকবালকে পুলিশি পাহারায় কা’রাগারে পাঠানো হয়েছে। এ সময় আ’দালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে জাবেদ ইকবাল বলেন, আমি দো’ষী নই। এদিকে আ’দালতের অনুমতি নিয়ে রায় ঘোষণার পর ছেলে জাবেদ ইকবালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তার বাবা আবদুল আউয়াল শিকদার। পরে তিনি বলেন, অন্য ঘটনায় তার ছেলে (জাবেদ) জ’ড়িত থাকলেও চট্টগ্রাম আ’দালতের ঘটনায় সে দো’ষী না। আমরা আপিল করব।

স’ন্ত্রাস দ’মন ট্রাইব্যুনালের পিপি মনোরঞ্জন দাশ জাবেদ ইকবালের যাবজ্জীবন কা’রাদ’ণ্ডের বি’ষয়ে বলেন, ঘটনার সময় তার বয়স কম ছিল। সে ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের ছাত্র। মা’মলার বিচার চলাকালে তার সহযোগিতা এবং অনুতপ্ত হওয়া- এসব বি’ষয় বিবেচনায় নিয়ে আ’দালত তাকে যাবজ্জীবন দিয়েছেন।