ফেসবুকে প্রেম করে ছাত্রলীগ নেতার সাথে শারীরিক সম্পর্ক, পরিবারসহ বিপাকে তরুণী

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : অক্টোবর 2, 2021 05:19:32 অপরাহ্ন
0
10
views
প্রতীকী ছবি

ফেসবুকে পরিচয়ের মাধ্যমে ছাত্রলীগ নেতার প্রেমে জড়িয়েছিলেন মেয়েটি। বিয়ের আশ্বাসে সম্পর্ক গভীরে পৌঁছায়। বিয়ের জন্য একাধিক বৈঠক করেও কোনো সমাধান মেলেনি। সর্বশেষ বৈঠকেও কোনো সমাধান না হওয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন মেয়েটির মা। এ অবস্থায় মেয়েটির পরিবার এখন এক প্রকার বিপাকে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের এ ঘটনাটি ‘টক অব দ্যা টাউনে’ পরিণত হয়েছে। এ জন্য আবার আগামী রবিবার বৈঠক ডাকা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত দুইজনের শেষ পরিণতি হিসেবে বিয়ে না হলে মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও বাহাদুরপুর গ্রামের বাসিন্দা বিল্লাল মিয়ার ছেলে রবিউল সানির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ায় একই উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের এক মেয়ে। ওই ছাত্রলীগ নেতা বিয়ের আশ্বাস দিলে তাদের সম্পর্ক গভীরে জড়ায়। এ নিয়ে হওয়া একাধিক বৈঠকে তাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে উঠার কথাও জানানো হয়। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাতে আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হাজি শফিউল্লাহ মিয়ার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে এ নিয়ে বৈঠক হয়।

সেখানে মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে বিয়ের দাবি জানানো হয়। অন্যদিকে, ছেলের পরিবার জরিমানা দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করতে চায়। ফলে বিষয়টি তখন মীমাংসা করা যায়নি। ছেলের পক্ষ এ বিষয়ে সময় চাইলে রবিবার (৩ অক্টোবর) আবার সভা ডাকা হয়। মেয়েটির ভাই বলেন, ফেসবুকে পরিচয়ের মাধ্যমে আমার বোনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। আমরা চাচ্ছি বিয়ে করাতে। কিন্তু বিষয়টির সমাধান হচ্ছে না। বৃহস্পতিবারের বৈঠকেও এ নিয়ে সমাধান না হওয়ার খবরে আমাড় মা অসুস্থ হয়ে পড়লে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের হাসপাতালে আনা হয় চিকিৎসার জন্য।

তিনি আরও বলেন,যদি বিয়ে হয় তাহলে ওই ছেলে আমার বোনের জামাই হবে। যে কারণে আমরা বিষয়টি নিয়ে অন্যভাবে ব্যবস্থা নিতে চাচ্ছি না। যদি বিয়ে না হয় তাহলে অবশ্যই আমরা সব ধরণের ব্যবস্থা নিবো। উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক রিফাত সিকদার বলেন, মেয়েটির পরিবার আমার কাছে মৌখিকভাবে বিষয়টি জানালে জেলা ছাত্রলীগকে অবহিত করেছি। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের আহ্বায়কের অফিসের সভা হলেও কোনো সুরাহা হয়নি বলে জানতে পেরেছি।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মো. শাহাদাৎ হোসেন শোভন বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে মৌখিকভাবে বিষয়টি আমাদেরকে জানানো হয়। তবে লিখিত কোনো অভিযোগ না থাকায় ওই ছাত্রনেতার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। বিষয়টি উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দকে জানানো হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হাজি শফিউল্লাহ মিয়া বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা সামাজিকভাবে মীমাংসার জন্য বসেছিলাম। তবে সামাধান করা যায়নি। রবিবার সভায় বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করবো।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত রবিউল সানির বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তার মোবাইল ফোন নম্বরে কল করা হলে সানির মা পরিচয় দিয়ে এক নারী বলেন, এটি চক্রের কাজ। একথা বলেই তিনি ফোনের লাইন কেটে দেন। সুত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন