আমি কি চু’রি করতে রাস্তায় নেমেছি, অ্যাপের জন্য কেন মা’মলা খাব

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : সেপ্টেম্বর 28, 2021 10:52:32 পূর্বাহ্ন
0
25
views

সারাদেশ: ‘ঢাকার কেরানীগঞ্জে আমার একটি স্যানিটারি পণ্যের দোকান ছিল। ক’রোনার কারণে গত দেড় বছর আগে আমার ব্যবসা বন্ধ হয়ে যায়। এরপর জীবন-জীবিকা নিয়ে স’মস্যায় পড়ে যাই। গত দুই মাস আগে মোটরসাইকেলটি নিয়ে রাইড শেয়ারিং অ্যাপের মাধ্যমে যাত্রী বহন করি। এই রাইড শেয়ারিং দিয়ে যা টাকা পাই তা দিয়ে সংসার চলে,’ বলছিলেন রাজধানীতে নিজের মোটরসাইকেল আ’গুনে পু’ড়িয়ে ফেলা শওকত আলী।

‘কিন্তু রাইড শেয়ারিং অ্যাপগুলো প্রতি রাইডে ২৫ ভাগ টাকা কে’টে নেয়। যাত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেওয়ার কাজটুকু শুধুমাত্র করে অ্যাপগুলো। এজন্য তারা এই টাকা কে’টে নেয়। অ্যাপে চালালে মা’মলা দেয় না পুলিশ, কিন্তু অ্যাপে না চা’লিয়ে যাত্রী বহন করলে মা’মলা খেতে হয়। অ্যাপের জন্য কেন আমি মা’মলা খাব? আমি কি রাস্তায় চু’রি করতে নেমেছি? এই ক্ষো’ভ থেকে মোটরসাইকেলটি পু’ড়িয়ে ফেলি।’ সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে ডিএমপির গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনারের (ডিসি) কার্যালয় থেকে বের হয়ে নিজের বাসায় গিয়ে অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবার চালক শওকত আলী যে কারণে মোটরসাইকেলটি পু’ড়িয়েছেন তার বিস্তারিত জানান।

এর আগে, সোমবার সকালে রাজধানীর বাড্ডা লিংক রোডে এলাকায় নিজের মোটরসাইকেল পু’ড়িয়ে দেন শওকত আলী। তার মোটরসাইকেল পুড়ানোর ভিডিও দেশে আলোচিত-সমালোচিত হয়। পরে তার পু’ড়ে যাওয়া মোটরসাইকেলসহ তাকে নিয়ে যাওয়া হয় বাড্ডা থানায়। সেখান থেকে শওকত আলীকে দুপুরের দিকে নিয়ে যাওয়া হয় ডিসি গুলশানের অফিসে। প্রায় ১২ ঘণ্টা পুলিশ হেফাজতে থেকে রাত ৯টায় ডিসি গুলশানের অফিসে থেকে বের হয় রাত ১১টায় বাসায় যান শওকত আলী।

বাসায় পৌঁছে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে শওকত আলী বলেন, ‘সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাসা থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে বের হই। যাত্রী নিয়ে গুলশান যাই। সেখান থেকে লিংক রোডে যাই আরেকজন যাত্রী তোলার জন্য। যাত্রীর জন্য অপেক্ষা করার সময় আনুমানিক সাড়ে ৯টায় একজন ট্রাফিক পুলিশ এসে মোটরসাইকেলের কাগজ চান। পরে ট্রাফিক পুলিশকে গত দুই সপ্তাহে আগে মা’মলা খাওয়ার বি’ষয়টি জানান।’ ‘ওই পুলিশ কর্মকর্তা যখন কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করছিলেন এরই মধ্যে আমি রাইড শেয়ারিং অ্যাপের ও’পর ক্ষি’প্ত হয়ে মোটরসাইকেল আ’গুন ধরিয়ে দেই। তবে আজকের ঘটনাটি ছিল অনাকাঙ্ক্ষিত ও দু’র্ঘটনা। এখানে পুলিশের কোনো দোষ নেই।’

অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবার বি’রুদ্ধে তার কী অ’ভিযোগ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ক’রোনায় ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর সংসার চালাতে ও পেটের দায়ে মোটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় নামি। কিন্তু রাইড শেয়ারিং অ্যাপের কারণে রাস্তায় প্রায় সময় মা’মলা খেতে হয়। দুই সপ্তাহে আগেও মা’মলা খেয়েছি। সারা দিন রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে যাত্রী আনা-নেওয়া করি। আর যাত্রীদের সঙ্গে শুধু যোগাযোগ করিয়ে অ্যাপগুলো নেয় ২৫ ভাগ টাকা। অ্যাপে চললে মা’মলা খাব না, না চললে খাব এ কেমন অন্যায়। এই অন্যায়ের প্র’তিবাদে মোটরসাইকেলে আ’গুন দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘রাইড শেয়ার করছি পেটের দায়ে। চু’রি করার জন্য রাস্তায় বের হইনি। আপডেট কাগজ থাকার পরেও আমি বাইক নিয়ে রাস্তায় বের হলে কেন মা’মলা খাব? আমি কোনো অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবার পক্ষে নই। অ্যাপস দিয়ে আমার লাভটা কোথায়? অ্যাপসে শুধু একটাই লাভ যাত্রীদের সঙ্গে কন্টাক্ট করিয়ে দেবে। অ্যাপসে হ’য়রানি প্রচুর। অ্যাপসে একটি ট্রিপ মারলে তেমন লাভ হয় না।’ তিনি আরও বলেন, ‘তবে আমি যে কাজটি করেছি তা খুবই অন্যায়। আমার বি’রুদ্ধে মা’মলাও হতে পারত। গাড়ি পু’ড়িয়ে আমার প্র’তিবাদটি ছিল শুধুই রাইড শেয়ারিং অ্যাপস কোম্পানির বি’রুদ্ধে। তবে এটি করা আমার উচিত হয়নি। বি’ষয়টি আমি পরে বুঝতে পেরেছি। দোষ করলে পুলিশ মা’মলা দেবে এটিই স্বাভাবিক।’

প্রায় ১২ ঘণ্টা পুলিশ হেফাজতে থাকার প্রসঙ্গে শওকত আলী বলেন, ‘বাইকে আ’গুন দেওয়ার সকালে থানায় গিয়েছিলাম। এরপর সেখান থেকে আমার ইচ্ছা ছিল গুলশানের ডিসি স্যারের সঙ্গে দেখা করে কথা বলব। থানা থেকে বের হয়ে গুলশানের ডিসি স্যারের অফিসে যাই। সেখানে রাতে ডিসি স্যারের সঙ্গে দেখা হয় এবং কথা হয়। এরপর রাতে বাসায় ফিরি।’ এ বি’ষয়ে সোমবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মো. ফারুক হোসেন বলেন, ‘বাড্ডায় মোটরসাইকেলের কাগজপত্র ঠিক আছে কি-না দেখতে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট এক ব্যক্তিকে থামায়। তখন ওই মোটরসাইকেল চালক কাগজপত্র না দিয়ে এক ধরনের ক্ষি’প্ত আচরণ করেন। পরে তিনি নিজেই নিজের মোটরসাইকেলে আ’গুন ধরিয়ে দেন। প্রাথমিকভাবে তাকে মা’নসিকভাবে অ’সুস্থ বলে মনে হচ্ছে। তবে এ ঘটনায় কর্তব্যরত সার্জেন্টের কোনো দোষ আছে কি-না বি’ষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি।’

গুলশান ট্রাফিক বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনাটি যেখানে ঘটেছে সেখানে আগে থেকেই ট্রাফিক সদস্যদের বলা ছিল সকালে যেন সেখানে কোনো মোটরসাইকেল না দাঁড়ায়। ঘটনাস্থলে রাইড শেয়ারিংয়ের একটি মোটরসাইকেল দাঁড়ালে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা চালকের কাছে কাগজপত্র দেখতে চান। কিন্তু ওই চালক কাগজপত্র না দেখিয়ে উল্টো রেগে গিয়ে নিজের বাইকে আ’গুন ধরিয়ে দেন।’