অ’নৈতিক কর্মকাণ্ড: পিবিআই’র কর্মকর্তা লাভলীকে অব্যাহতি

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : সেপ্টেম্বর 27, 2021 01:35:19 অপরাহ্ন
0
30
views

সারাদেশ: ফেনীতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) বি’তর্কি’ত উপ-পরিদর্শক (এসআই) লাভলী ফেরদৌসীকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। পিবিআই ফেনী ইউনিটের পুলিশ সুপার (এসপি) আসাদুজ্জামান রোববার বিকেলে গণমাধ্যমকে বি’ষয়টি নিশ্চিত করেছেন। অ’ভিযুক্ত উপ-পরিদর্শক (এসআই) লাভলী ফেরদৌসী সম্প্রতি কক্সবাজার থেকে বদলি হয়ে ফেনী পিবিআইতে যোগদান করেছিলেন। কাজে যোগ দেওয়ার পরই তাকে সাময়িক অব্যাহতির নির্দেশনা এখানে আসে।

পিবিআই ফেনী ইউনিটের পুলিশ সুপার (এসপি) আসাদুজ্জামান বলেন, ‘উপ-পরিদর্শক (এসআই) লাভলী ফেরদৌসী কক্সবাজারে কর্মরত অবস্থায় তার বি’রুদ্ধে ইতোপূর্বে আনা অ’ভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাঁকে শা’স্তির মুখোমুখি হতে হয়েছে। শুনেছি তাঁর বি’রুদ্ধে ওঠা অ’ভিযোগের বি’ষয়ে গঠিত ত’দন্ত কমিটির প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে চাকরি থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।’

পিবিআই সূত্র জানায়, এসআই লাভলী ফেরদৌসী ২০১৫ সালে প্রথম সংসারের ইতি টেনে কক্সবাজারের রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি কাইম্মারঘোনা এলাকার বেলাল আহম’দের ছেলে শাহজাহানের সাথে দ্বিতীয় বিয়ে বন্ধনে জড়ান। দ্বিতীয় বিয়ের পর প্রথম সংসারে দুই স’ন্তান ও পরের সংসারে এক স’ন্তানের সম্পূর্ণ দায়িত্ব লাভলীকে পালন করতে হয়। একই সাথে দ্বিতীয় স্বামী বেকার হওয়ায় তাঁর হাত খরচও জোগান দিতে হতো লাভলীকে। এতে করে স’রকারি বেতনে সংসারের ব্যয় সামলাতে না পেরে অনিয়ম-দু’র্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন এসআই লাভলী।

অ’ভিযোগ রয়েছে, মা’মলা ত’দন্তে স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে যেত লাভলী। স্বামীকে দিয়ে অ’নৈতিক নানান কাজ করানোর পাশাপাশি আর্থিক সুবিধা নিয়ে মা’মলার প্রতিবেদনে নয়ছয় করা হতো। একই সাথে ক্ষমতার অপপ্রয়োগ, অর্থ আ’ত্মসাৎসহ নানা অ’পরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে লাভলী। সম্প্রতি একটি মা’মলার ত’দন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বা’দী পক্ষের কাছ থেকে লাভলীর ঘুষ নেয়ার অডিও ফাঁ’স হয়। যেখানে ঘুষ হিসেবে দেয়া টাকার পরিমাণ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন এসআই লাভলী ফেরদৌসী ও তাঁর স্বামী শাহজাহান। অডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে পিবিআই কর্মকর্তাদের দায়িত্ববোধ নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

ঘটনা ত’দন্তে অতিরিক্ত ডিআইজি পদমর্যাদার এক কর্মকর্তার নেতৃত্বে পিবিআই কর্তৃপক্ষ কমিটি গঠন করে। ত’দন্ত কমিটি প্রায় এক সপ্তাহ কক্সবাজারে অবস্থান করে অ’ভিযোগের পুঙ্খানুপুঙ্খ ত’দন্তের মাধ্যমে একটি প্রতিবেদন দাখিল করে। প্রতিবেদনে এসআই লাভলী ফেরদৌসীর বি’রুদ্ধে ওঠা অ’ভিযোগের সত্যতা পাওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়। তাঁর বি’রুদ্ধে পুলিশের শৃঙ্খলা আইনে শা’স্তির সুপারিশ করা হয়। কমিটির সুপারিশে এসআই লাভলীকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া কথা বলা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে পিবিআইয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, বি’ষয়টি আমাদের জন্য বিব্রতকর এবং পিবিআইয়ের নামে প্র’তারণার শামিল। তাঁর অ’পরাধের কারণে কক্সবাজার পিবিআইয়ের সুনাম ন’ষ্ট হয়েছে। ত’দন্ত কমিটির কাছে স্বামীকে দিয়ে মা’মলা ত’দন্ত করানো এবং ত’দন্তকাজে স্বামীকে সঙ্গে নেওয়ার বি’ষয়টি লাভলী স্বীকারও করেছেন। মূলত স্বামীর লোভের কারণে লাভলী পুলিশের শৃঙ্খলা পরিপন্থি নানা অ’পরাধে জড়িয়ে পড়েন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ত’দন্ত কমিটির আরেক দায়িতপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হয়ে স্বামীকে দিয়ে মা’মলা ত’দন্ত করানোর ঘটনায় পিবিআইয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিস্মিত এবং হতবাক হয়েছেন। এটাই তাকে চ’রম বি’পদে ফে’লেছে। এসআই লাভলী ফেরদৌসীর বি’রুদ্ধে ওঠা অ’ভিযোগগুলোর অধিকাংশরই সত্যতা পাওয়ায় তাঁর বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করা হয়।