স্ত্রীকে হ’’ত্যার পর লা’শ পু’ড়িয়ে আলামত ন’ষ্ট করেন স্বামী

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : আগস্ট 19, 2021 08:51:56 অপরাহ্ন
0
21
views

সারাদেশ: চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজে’লার শ্রীপুর খরণদ্বীপ ইউনিয়নে এক গৃ’হবধূকে নি’র্যাতন করে হ’’ত্যার পর লা’শ পু’ড়িয়ে ফেলার অ’ভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্ম’দ মোকাররমসহ ১৮ জনের বি’রুদ্ধে মা’মলা করেন নি’হত গৃ’হবধূ ইয়াছমিন আক্তার অ্যানীর মা রোকসানা বেগম। চট্টগ্রামের চিফ জু’ডিশিয়াল ম্যা’জিস্ট্রেট আ’দালতে মা’মলাটি করেন তিনি। এর আগে, ৩ আগস্ট ৯ নম্বর ওয়ার্ডের জ্যৈষ্ঠপুরার রণজিত দের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

মা’মলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, পারিবারের অনটন মেটাতে চট্টগ্রাম নগরের ইপিজেড এলাকার একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন অ্যানী। চাকরির সুবাদে বন্দরটিলা এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন তিনি। কর্মস্থলে যাওয়া-আসার পথে একই এলাকার সেলুন কর্মচারী বাবুল দের সঙ্গে অ্যানীর পরিচয় হয়। বাবুল নিজেকে মু’সলিম বলে পরিচয় দেন। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৯ সালে তারা বিয়ে করেন।

বিয়ের পর বাবুল হিন্দু বলে জানতে পারেন অ্যানী। এরপর বি’ষয়টি জানাজানি হলে বন্ধু-বান্ধব ও স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায় তার। অ্যানীর এ অ’সহায়ত্বের সুযোগ নেন বাবুল। জো’র করে তাকে হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত করার চেষ্টা করতে থাকেন বাবুল ও তার পরিবার। ঘটনার তিনদিন আগেও খালাতো বোন হাসিকে অ্যানী জানান, ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করবেন তার স্বামী বাবুল। তাই তিন হাজার টাকার প্রয়োজন। বি’ষয়টি তার মাকে জানাতে বলেন। কিন্তু অ্যানীর মা টাকা দিতে অপারগতা জানালে বাবুল ক্ষি’প্ত হয়ে ওঠেন। একই সঙ্গে স্ত্রীর মোবাইল ফোনটি কেড়ে নিয়ে বন্ধ করে দেন।

পরে ৩ আগস্ট বিকেলে বাবুল মুঠোফোনে হাসিকে জানান, অ্যানী স্ট্রোক করে মা’রা গেছেন। মেয়ের মৃ’ত্যুর খবর পেয়ে লা’শ নিতে গ্রামের বাড়ি থেকে রওনা দিতে চান অ্যানীর মা। কিন্তু ওই রাতেই বাবুলের ভাই পরিচয়ে একজন ফোন দিয়ে মাকে যেতে নিষেধ করেন। স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারসহ স্থানীয় লোকজনের পরামর্শে লা’শ সৎকার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

একজন মু’সলিম মেয়েকে কীভাবে সৎকার করা হয়েছে জানতে চাইলে এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার, চৌকিদার এবং প্রতিনিধিদের পরামর্শে লা’শ আ’গুনে পু’ড়িয়ে সৎকার করা হয়েছে বলেও জানান বাবুলের ভাই পরিচয় দেওয়া ওই ব্যক্তি। অ্যানীর পরিবারের দাবি, তাদের মেয়েকে হ’’ত্যার পর দায় থেকে বাঁচতে তড়িঘড়ি লা’শ আ’গুনে পু’ড়িয়ে আলামত ন’ষ্ট করেছেন আ’সামিরা। তারা প্রভাবশালী হওয়ায় নিজেরা মা’মলা না নিয়ে আ’দালতে মা’মলা করার পরামর্শ দেয় বোয়ালখালী থানা পুলিশ।

এদিকে জানতে চাইলে ঘটনার বি’ষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন শ্রীপুর খরণদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্ম’দ মোকাররম। মূলত হ’য়রানি করতেই একটি পক্ষ মা’মলায় তার নাম জড়িয়ে দিয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। বোয়ালখালী থানার ওসি মো. আবদুল করিম বলেন, মা’মলাটি আমলে নিয়ে ত’দন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ নিয়েছেন আ’দালত। ত’দন্ত চলমান রয়েছে।