‌‘মে’রে ফেলার হু’মকি দিয়ে আমাদের ধ’র্ষ’ ণ করতো বাবা’

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : আগস্ট 16, 2021 07:55:36 অপরাহ্ন
0
25
views

তখন সে ১০-১২ বছরের শি’শু। তার বাবা দোবির উদ্দিন (৪২) তাকে ধ”ণ করতে থাকেন। এভাবে কে’টে যায় দীর্ঘ সাড়ে চার বছর। মেয়েটির বিয়ের পর তার বাবার বি”কৃত যৌ’ন লালসা থেকে রক্ষা পায়। তারা দুই বোন। এখন তার যে বোনটি বাড়িতে আছে, সে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে। তার বয়সও ১০-১২ বছর হবে। সেই মেয়েটিকেও নি’র্মম যৌ’ন নি’র্যাতন করা ও ধ”ণ চেষ্টার অ’ভিযোগ উঠেছে তার বাবা দোবির উদ্দিনের বি’রুদ্ধে।

জানা গেছে, গত কোরবানির ঈদের ৪-৫ দিন আগে দোবির উদ্দিন দিনের বেলায় তার ছোট মেয়েকে ধ”ণ করার জন্য নি’র্যাতন করতে থাকেন। মেয়েটি ভ’য়ে ও আতংকে কাঁদতে শুরু করে। তখন তার বাবা তার বড় বোনের স্বামীর মোবাইলে ফোন দেয়। তার যে মেয়েকে সে টানা সাড়ে চার বছর ধ”ণ করে অন্য ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছেন।

শেষ পর্যন্ত কল রেকর্ড ধরেই প্রকাশ পায় নিজ বাবা কর্তৃক দুই শি’শু কন্যাকে পৈ’শাচিক যৌ’ন নি’র্যাতনের লোম হর্ষক তথ্য।‌ ‘মে’রে ফেলার হু’মকি দিয়ে আমাদের ধ”ণ করতো বাবা’

সেই কল রেকর্ড হুবহু তুলে ধরা হলো- “ হ্যালো ? হ্যালো। এ বিটি ? আঁহ। কোথায় আচাও ? এযে এটি। একটু বাইরে যাওতো, তোমার ছোট বোনের সাথে কথা কও। কার সাথে ? তোমার ছোট বোনের সাথে। ছোট বোনের সাথে ? হ। হ্যালো ? দেন। আচ্ছা, এ বিটি ? আঁহ। তোক আমি শিকাইনি ? আহ ? তোমাক আমি শিকাইনি কাম কাইজ ? হ। লেওয়া দেওয়া ? হ। ক্যা ? না এ যে বাচ্চা লেওয়া পন্ত শিকাইনি তোক আমি ? তাইলে এযে তোর ছোট বোনেক ধিরে ধিরে শিখান লাগবিলা ? উঁ হু.. বোঝনা , এ তুই কয়াদে যে শিকপি, ক ? এ আপু ? কোনে ? এ আপু ? আঁহ। তুই কো ? মা কোনে ? মা নামাজ পড়তে গেচ। কোনটি ? শায়লা গা বাড়ি। হ্যালো ? অঁাঁহ, কি, কলুলা ? হ। তোর মায়ের কাছ য্যাবার চ্যাচ্ছে আর কোচ্ছে যে কয়া দেবো, এইডা কি কওয়ার মতো কতা ? মান সন্মান খাবিলা ? কয়া দে একটু যাল্লা তুই, এই লে কয়া দে। আঁহ ? শিকপি না কি, কি করবি তুই কয়া দে। আমি কি কবো ?। তুই শিকিসনাই ? আঁহ ? তুই শিকিসনি ? কয়া দে। মার কাছ যাবো।”

এদিকে এ ঘটনার জের ধরে দোবির উদ্দিনের পরিবারকে সমাজচ্যুত করে রাখা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন মাগুড়াবিনোদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাষক আতিকুল ইসলাম বুলবুল। তিনি বলেন, লোক মুখে এসব কথা শুনেছেন। কিন্তু ব্যস্ততার কারণে ভু’ক্তভোগীদের খোঁজ খবর ও তাদের সঙ্গে কথা বলা হয়ে ওঠেনি।স্থানীয়রা তাদের সমাজচ্যুত করে রেখেছেন।

রবিবার বিকেলে (১৫ আগস্ট) সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজে’লার মাগুড়াবিনোদ ইউনিয়নের চর হামকুড়িয়া গ্রামে দৈনিক ইত্তেফাকের সঙ্গে দোবির উদ্দিনের স্ত্রী সেলিনা খাতুন, দোবির উদ্দিনের দুই মেয়ে, দোবির উদ্দিনের বড় মেয়ের স্বামী শাজাহান আলী, দোবির উদ্দিনের বাবা আব্দুল খালেক, মাগুড়াবিনোদ ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর চর হামকুড়িয়া ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বেলায়েত হোসেনসহ ঐ গ্রামের অনেকের সঙ্গে এ বি’ষয়ে কথা হয়।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে দোবির উদ্দিনের বড় মেয়ে জানান, আনুমানিক ১১ বছর বয়স থেকে তার বাবা তাকে ধ”ণ করতে শুরু করে। আর এসব কথা কাউকে বলে দিলে তাকে প্রা’ণে মে’রে ফেলার ভ’য় দেখাতো। মেয়েটিকে বোঝানো হতো যে বিয়ের আগে এসব শিখতে হয়, নয়তো স্বামীর বাড়িতে খুব ক’ষ্ট হবে। কী সঠিক আর কোনটা বেঠিক অ’সহায় মেয়েটি তা বুঝতে পারতো না। প্রা’ণ ভ’য়ে কাউকে কিছু না বলে অধিকাংশ সময় একদম একা চুপচা’প থাকতো।

দোবির উদ্দিনের বড় মেয়ে আরও জানান, তার বাবার বি”কৃত যৌ’ন লালসার শি’কার হয়ে সে একবার স’ন্তান ধারণ করেন। তারপর তার বাবা তাদের গ্রামের আজাজুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির কাছে নিয়ে যায়। তিনি তখন ও’ষুধ কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তার বাবা আজাজুলের কাছে বলেন, আমার মেয়ে একটা ছেলের সঙ্গে অ’নৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে মা হতে চলেছে। কিন্তু এসব জানাজানি হলে মান সন্মান কিছুই থাকবে না। আমার মেয়ের বিয়ে হবে না। তখন মানবিক দিক বিবেচনা করে আজাজুল কোনো এক ক্লিনিকে নিয়ে তার গ’র্ভপাত করে দেন। এসব কথা বলতে বলতে মেয়েটি অঝোরে কাঁদতেছিলো। এক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

ছোট মেয়েটি জানায়, এসব কথা কাউকে বলে দিলে তার বাবা তাকে হাঁসুয়া দিয়ে জ’বাই করার ভ’য় দেখিয়েছে।

দোবির উদ্দিনের বড় মেয়ের স্বামী শাজাহান আলী বলেন, আমার ফোনে অটো রেকর্ড চালু করা আছে, আমার শ্বশুর সেটা জানতেন না। আমার স্ত্রী সংসার ভে’ঙে যাওয়ার ভ’য়ে কখনও নিজে থেকে আমাকে কিছুই বলেনি। তাছাড়া বিয়ের আগে যাই ঘটুক সেটা আমার স্ত্রীর সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে। আমি কল রের্কড শোনার পর আমার স্ত্রী সব খুলে বলেছেন। ওর কোনো দোষ নেই। ও ভাগ্যের নি’র্মম পরিহাসের শি’কার মাত্র। বরং তার দুঃথ ও ক’ষ্টের কথা শুনে আমি নিজের চোখের পানি ধরে রাখতে পারিনি।

দোবির উদ্দিনের স্ত্রী সেলিনা খাতুন বলেন, গ্রামের একটি পুকুর পাড়ে ফাঁকা জায়গায় তাদের বসতঘর। অভাব অনটনের সংসার। আমি দিন মজুরের কাজ করতে গেলে বা কোনো কারণে বাড়িতে না থাকলে তার স্বামী তার দুই মেয়ের সাথে ওসব করতেন, আমি জানতাম না। মেয়েরা কখনও আমাকে জানায়নি।

দবির উদ্দিনের বাবা আব্দুল খালেক (৬৩) বলেন, এ ঘটনা জানাজানি হলে তার বড় নাতনি (দোবির উদ্দিনের বড় মেয়ে) আমার কাছে বিচারের দাবি করে। কিন্তু আমার ছেলে দিন মজুরের কাজে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে পা’লিয়েছে।

মাগুড়াবিনোদ ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর চর হামকুড়িয়া ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বেলায়েত হোসেন বলেন, এ ঘটনার কারণে আমরা বাবারা স’ন্তানের কাছে লজ্জায় পড়েছি। তিনি আইন অনুযায়ী অ’পরাধীর সর্বোচ্চ সাজার দাবি তুলেছেন।

তাড়াশ থানা ওসি মো. ফজলে আশিক ইত্তেফাককে বলেন, এ ঘটনার অ’ভিযোগ নিয়ে এখনও কেউ থানায় আসেনি।