৬ মাস সুযোগ দিন, পুরনো সব অর্ডার ডেলিভারি দেব : রাসেল

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জুলাই 25, 2021 02:36:37 অপরাহ্ন
0
16
views

‘ইভ্যালি বন্ধ করে কোনো সমাধান হবে না। কোনো প্রতিষ্ঠানই বন্ধ করে ইনভে’স্টমেন্ট ফেরত আনা সম্ভব নয়। তাই আমাদের ব্যবসা করার সুযোগ দিন, আমরা কাউকে ক্ষতিগ্রস্ত হতে দেব না। সুযোগ দিলে আগামী ছয় মাসের মধ্যে পুরনো সব অর্ডার ডেলিভারি দেব।’ শনিবার (২৪ জুলাই) রাত ১১টায় ফেসবুক লাইভে এসব কথা বলেন ইভ্যালির সিইও মোহাম্মদ রাসেল। এক ঘণ্টা ২২ মিনিটের ফেসবুক লাইভে ইভ্যালির বর্তমান অবস্থা ও ভবিষ্যতে কীভাবে ব্যবসা করবে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন তিনি।

ইভ্যালির সিইও বলেন, ‘একটি প্রপাগান্ডা ছড়িয়ে যদি ইভ্যালি বন্ধ করা যায় তাহলে হয়তো কোনো একটা গোষ্ঠী উপকার পাবে, কিন্তু তার চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কারণ ইভ্যালি বন্ধ করা কোনো সমাধান না। কোনো প্রতিষ্ঠানই বন্ধ করে ইনভেস্টমেন্ট ফেরত আনা সম্ভব নয়। আমাদের ব্যবসা করার সুযোগ দিন, আমরা কাউকে ক্ষতিগ্রস্ত হতে দেব না।’ বর্তমান সমস্যার কথা জানিয়ে রাসেল বলেন, ‘আমরা অনেককে রি-ফান্ডের চেক দিয়েছি তা আটকে গেছে।

দুটি ব্যাংকের সঙ্গে কথা বলেছি, এটি সমাধানে আরও সাত থেকে ১০ দিন সময় লাগবে। এর মধ্যেই নিয়ন্ত্রণ সংস্থাগুলোর সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। আগামী ছয় মাসের মধ্যে আমাদের পুরনো সব অর্ডার ডেলিভারি দেব। এজন্য সহযোগিতা দরকার।’ ক্ষোভ প্রকাশ করে ইভ্যালির সিইও বলেন, ‘গ্রাহকের স্বার্থ রক্ষা ও ভবিষ্যতে সুরক্ষার জন্য অনেকে কথা বলছেন। কিন্তু বিষয়টা সমাধানের চেয়ে ইভ্যালি বন্ধ করাই এখন বেশি জোর দিচ্ছেন তারা। অনেকে বলছে ইভ্যালির যে লস হয়েছে তা পূরণ করা সম্ভব নয়। এটা আসলে ঠিক না।

একটা প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে এ কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু আমাদের ভ্যালুয়েশন করার সুযোগ দেওয়া হয়নি। বিজনেস ভ্যালুয়েশন করলে এ লস রিকভারি করা সম্ভব। এখন আমাদের সঙ্গে অনেক বড় বড় কোম্পানি আছে। অপ্পো, স্যামসাং, টেকনো, যমুনা ইলেকট্রনিক্স, ওয়ালটন, বসুন্ধরা গ্রুপ, বাটা ও কোকা কোলার মতো কোম্পানি আমাদের সঙ্গে রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান কি না বুঝেই আমাদের সঙ্গে ব্যবসা করছে?’ মোহাম্মদ রাসেল বলেন, ‘অনিয়মের বিষয়ে মিডিয়ায় যে কথাগুলো আসে এগুলোকে আমি এপ্রিশিয়েট করি।

কারণ স্বাধীনতার পর আমাদের দেশে অনেক ফাইনান্সিয়াল ক্রাইম হয়েছে। কিন্তু ইভ্যালিকে সেই ক্রাইমে সঙ্গে মেলানো হয়েছে যা ইনজাস্টিস। কারণ আমরা কোনো ফাইনান্সিয়াল ক্রাইম করিনি।’ তিনি আরও বলেন, ‘সরকারের দুটি সংস্থা ই-কমার্স নিয়ে কাজ করছে। গত মাসের ২৯ তারিখ ই-কমার্স পরিচালনা সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে। এতে করে একটি স্টান্ডার্ড অপারেটর সিস্টেম চালু হয়েছে। যে নির্দেশনা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দিয়েছে তা আমাদের মানতে হবে। এ নিয়ম না মানলে মন্ত্রণালয় আমাদের লাইসেন্স বাতিল করে ব্যবসা বন্ধ করে দেবে। এই সিস্টেমে এখন ৪৫-৬০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি দেওয়ার সুযোগ থাকছে না।

এখন সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি দিতে হবে। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংক পেমেন্ট সিস্টেমের যে নির্দেশনা দিয়েছে গ্রাহক পণ্য বুঝে না পেলে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অর্থ পাবে না। এসব নিয়মের কারণে ভবিষ্যতে ই-কমার্সে গ্রাহকের ক্ষতিগ্রস্ত বা প্রতারিত হওয়ার সুযোগ নেই।’ ইভ্যালির সিইও বলেন, ‘ইভ্যালি কার্যক্রম শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত ৭০ লাখ অর্ডারের পণ্য গ্রাহককে ডেলিভারি দিয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ছয় হাজার কোটি টাকা। আমাদের ওপর দিয়ে ঝড় বয়ে গেছে। এতো সমস্যার মধ্যে আমাদের অর্ডার আসছে। আজকেও ২০ কোটি টাকার অর্ডার পেয়েছি।

এগুলো দিতে গেলে অবশ্যই নিয়ম মেনে দিতে হবে। এজন্য আমাদের কিছু সহযোগিতা প্রয়োজন। আমাদের ১০ লাখ ইউনিক গ্রাহক আছে। এখন আমাদের সুযোগ দিলে আমরা সামনে এগিয়ে যেতে পারব। আগামীতে আমরা ডিসকাউন্ট অফার আস্তে আস্তে কমিয়ে লস কমাব।’ এর আগে ইভ্যালির ‘সম্পদের চেয়ে ছয় গুণ বেশি দেনা’ বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে তথ্য উঠে আসে। প্রতিবেদনে জানানো হয় ইভ্যালির মোট দায় ৪০৭ কোটি টাকা। প্রতিষ্ঠানটি গ্রাহকের কাছ থেকে অগ্রিম নিয়েছে ২১৪ কোটি টাকা, আর মার্চেন্টদের কাছ থেকে বাকিতে পণ্য নিয়েছে ১৯০ কোটি টাকার। স্বাভাবিক নিয়মে প্রতিষ্ঠানটির কাছে কমপক্ষে ৪০৪ কোটি টাকার চলতি সম্পদ থাকার কথা। কিন্তু সম্পদ আছে মাত্র ৬৫ কোটি টাকার।

এছাড়া গ্রাহক ও মার্চেন্টদের কাছ থেকে গত ১৪ মার্চ পর্যন্ত ইভ্যালির নেওয়া অগ্রিম ৩৩৯ কোটি টাকার কোনো হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। এ টাকা আত্মসাৎ বা অবৈধভাবে অন্যত্র সরিয়ে ফেলার আশঙ্কা রয়েছে। ইভ্যালির ওপর করা বাংলাদেশ ব্যাংকের এক পরিদর্শন প্রতিবেদনের পর্যবেক্ষণের পরিপ্রেক্ষিতে ৪ জুলাই অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারের ৪ প্রতিষ্ঠানকে চিঠি পাঠিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। প্রতিষ্ঠান চারটি হচ্ছে- দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ, বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর।

এরপর দুদকের পক্ষ থেকে ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরীন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাসেলের দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে সংশ্লিষ্টদের চিঠি দেওয়া হয়। আদালতও একই নির্দেশনা দিয়েছেন। এদিকে ইভ্যালি ও আলিশা মার্টসহ ১০টি অনলাইন মার্চেন্টে পেমেন্ট স্থগিত করেছে বিকাশ। এর আগে বেশ কিছু ব্যাংকও ইভ্যালির সঙ্গে তা‌দের ক্রেডিট, ডেবিট ও প্রি-পেইড কার্ডের লেনদেন স্থগিত করে। এরম‌ধ্যে রয়েছে- ডাচ-বাংলা ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (এম‌টি‌বি),

ব্র্যাক ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, ঢাকা ব্যাংক। পাশাপাশি ইউসিবি ও সিটি ব্যাংকও তাদের গ্রাহকদের এসব অনলাইন মার্চেন্টে লেনদেনের বিষয়ে সতর্ক করেছে। এদিকে ইভ্যালির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ বেশকিছু পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর ভাউচারের বিপরীতে পাওনা অর্থ পরিশোধ না করায় তারা আর পণ্য দিচ্ছে না। সম্প্রতি ইভ্যালির গিফট ভাউচারে কেনাকাটার নিষেধাজ্ঞা দিয়ে বেশকিছু প্রতিষ্ঠান বিজ্ঞপ্তিও দিয়েছে। সুত্রঃ বিডি ২৪ লাইভ