এসআইয়ের ড্রয়ার থেকে ঘু’ষের আড়াই লাখ টাকা বের করলেন এএসপি

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : মে 6, 2021 10:08:08 অপরাহ্ন
0
30
views

ভু’ক্তভোগীর দেয়া খবরে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী থানায় এসে এসআই মো. রেজাউল করিমের ড্রয়ার থেকে ঘুষের আড়াই লাখ টাকা বের করেন সহকারী পুলিশ সুপার (সোনাইমুড়ী সার্কেল) সাইফুল ইসলাম। এ ঘটনায় তাকে প্রত্যাহার করে নোয়াখালী পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় নোয়াখালী জে’লা পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, অ’ভিযুক্ত এসআই মো. রেজাউল করিমের বি’রুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অ’ভিযোগে তাকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে এবং এ বি’ষয়ে ত’দন্ত চলছে। তাই তাকে নোয়াখালী পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

এর আগে, গত মঙ্গলবার রাতে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেনের নির্দেশে অ’ভিযুক্ত রেজাউল হোসেনকে প্রত্যাহার করা হয়।

স্থানীয়দের অ’ভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে এসআই রেজাউল বেগমগঞ্জের চৌমুহনী শহরের একজন পল্লী বিদ্যুৎ ডিলারের একটি মালবাহী ট্রাক আ’টক করেন। গাড়িতে থাকা মালামালগুলো অ’বৈধ বলে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। একপর্যায়ে ডিলারের কাছ থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা ঘুষ আদায় করেন।

পরে তিনি ওই ডিলারের কাছ থেকে আরও টাকা আদা’য়ের পাঁয়তারা করেন। ডিলার ঘুষের টাকা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বি’ষয়টি নোয়াখালীর পুলিশ সুপারকে অবহিত করেন।

ভু’ক্তভোগী পুলিশ সুপারকে জানিয়ে দেন- কিছুক্ষণের মধ্যে অ’ভিযুক্ত এসআইয়ের অফিসের ড্রয়ার তল্লা’শি করলে তার দেওয়া ঘুষের টাকা পাওয়া যাবে। পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে নোয়াখালী সহকারী পুলিশ সুপার (সোনাইমুড়ী সার্কেল) সাইফুল ইসলাম সোনাইমুড়ী থানায় এসে এসআই রেজাউলের টেবিলের ড্রয়ার খুলে ঘুষের টাকা পেয়ে ওই টাকা জ’ব্দ করেন।

এ সময় তিনি পুরো ঘটনা ভিডিও ধারণ করে নেন। এ সময় রেজাউল কোনো সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেননি। সুত্রঃ যুগান্তর