হে’ফাজতের তা’ণ্ডব: ‘মা’ঝারি নে’তা’ ধ’রা পু’লিশের কৌ’শল

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : এপ্রিল 18, 2021 09:05:15 পূর্বাহ্ন
0
26
views

রাজনীতি: ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের কয়েকটি এলাকায় না’শকতার ঘটনায় হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয়, মহানগর ও জে’লা পর্যায়ের মধ্যম সারির নেতাদের গ্রে’প্তারের কৌশল নিয়েছে পুলিশ। একই সঙ্গে মাওলানা মামুনুল হকসহ কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদেরও নজরদারিতে রাখা হয়েছে। ত’দন্তের প্রক্রিয়ায় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে শীর্ষ নেতাদেরও গ্রে’প্তার করা হতে পারে বলে সূত্র জানিয়েছে।

গতকাল শনিবার পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কমিটি ও ঢাকার আট নেতাসহ হেফাজতের শতাধিক নেতাকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। সর্বশেষ গতকাল দুই নেতাকে গ্রে’প্তার করা হয়। মোহাম্ম’দপুর থেকে কেন্দ্রীয় সহকারী মহাস’চিব ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাস’চিব মাওলানা জালাল উদ্দিনকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। বিকেলে বারিধারার একটি মাদরাসা থেকে কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাস’চিব ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি আল্লামা জুনায়েদ আল হাবিবকে গ্রে’প্তার করা হয়। দুজনকেই ২০১৩ সালের না’শকতার মা’মলায় গ্রে’প্তার দেখানো হচ্ছে বলে জানান ডি’বির কর্মকর্তারা।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় লালবাগে গ্রে’প্তার হওয়া ঢাকা মহানগর কমিটির সহসভাপতি জুবায়ের আহম’দকে ২০১৩ সালের তা’ণ্ডবের মা’মলায় গতকাল পাঁচ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন আ’দালত। সংগঠনের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, কয়েকজন নেতাকে গ্রে’প্তারের কারণে মধ্যম সারির নেতাদের মধ্যে আ’তঙ্ক দেখা দিয়েছে। অনেকে গাঢাকা দিয়েছেন। মাওলানা মামুনুল হকসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার অবস্থান নিয়েও ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। সাদা পোশাকে পুলিশ তাঁদের কয়েকজনকে খুঁজছে বলেও দাবি করছে হেফাজত সূত্র।

ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ডি’বি) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, গতকাল দুপুরে মোহাম্ম’দপুরের শেরশাহসূরি রোডের বাসা থেকে হেফাজতের সহকারী মহাস’চিব মাওলানা জালাল উদ্দিনকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। তাঁর বি’রুদ্ধে ২০১৩ সালের একাধিক মা’মলা রয়েছে। সাম্প্রতিক সহিং’সতার সঙ্গেও তাঁর সম্পৃক্ততা রয়েছে। ডি’বির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম জানান, গতকাল আল্লামা জুনায়েদ আল হাবিবকে রাজধানীর বারিধারা থেকে গ্রে’প্তার করা হয়। তিনি শাপলা চত্বরে সহিং’সতার ঘটনার মা’মলা এবং সম্প্রতি দেশজুড়ে তা’ণ্ডবের ঘটনায় একাধিক মা’মলার আ’সামি।

আ’দালত সূত্র জানায়, গতকাল হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগর কমিটির সহসভাপতি জুবায়ের আহম’দের পাঁচ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্ম’দ জসীমের আ’দালত। সূত্র জানায়, গত এক সপ্তাহে হেফাজতের আটজন কেন্দ্রীয় ও মহানগরী নেতাকে গ্রে’প্তারের পর রি’মান্ডে নেওয়া হয়েছে। এতে মধ্যম সারির নেতাদের মধ্যে গ্রে’প্তারের আ’তঙ্ক বিরাজ করছে। মামুনুলের রিসোর্টকাণ্ডের বিতর্কের মধ্যেই সম্প্রতি আলোচিত শি’শুবক্তা হাফেজ মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে গ্রে’প্তার করা হয়। গত রবিবার হেফাজতের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবা’দীকে হাটহাজারী থেকে গ্রে’প্তার করে ঢাকায় আনা হয়।

এরপর গ্রে’প্তার করা হয়েছে কেন্দ্রীয় সহকারী মহাস’চিব মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজী, মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, সহ-অর্থ সম্পাদক ও ঢাকা মহানগরী কমিটির সহসভাপতি মুফতি ইলিয়াস হামিদী, কেন্দ্রীয় কমিটির সহপ্রচার সম্পাদক মুফতি শরিফউল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ জে’লা সেক্রেটারি মুফতি বশির উল্লাহসহ বিভিন্ন পর্যায়ের শতাধিক নেতাকে। ঢাকায় গ্রে’প্তার নেতাদের বর্তমান সময়ের মা’মলার পাশাপাশি ২০১৩ সালের শাপলা চত্বের না’শকতায় গ্রে’প্তার দেখানো হচ্ছে।

পুলিশের সূত্র জানায়, মধ্যম সারির নেতাদের গ্রে’প্তারের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় নেতাদের কার্যক্রম এবং পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ত’দন্তে প্রমাণ এবং মধ্যম সারির নেতাদের জি’জ্ঞাসাবাদে নাম এলেই শীর্ষ নেতাদের গ্রে’প্তার করা হবে। ঢাকার ডি’বি পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, ‘আমরা গো’য়েন্দা তৎপরতা চা’লিয়ে যাঁদের বি’রুদ্ধে সাম্প্রতিক না’শকতার অ’ভিযোগ রয়েছে এবং আগেরও একাধিক মা’মলা রয়েছে তাঁদের গ্রে’প্তার করছি। গ্রে’প্তার অ’ভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

জানা গেছে, সম্প্রতি মোদিবি’রোধী সহিং’সতার ঘটনায় ঢাকার পল্টন ও মতিঝিল থানায় ১২টি মা’মলা হয়েছে। এসব মা’মলায় হেফাজতের মামুনুল হকসহ অনেক নেতাকে আ’সামি করা হয়েছে। ২০১৩ সালের ৫ মে হেফাজতের তা’ণ্ডবের সময় রাজধানীতে ৫৩টি মা’মলা হয়েছিল। এর মধ্যে চারটি মা’মলায় আ’দালতে অ’ভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছিল। বাকিগুলো এখনো ত’দন্তাধীন। পল্টন ও মতিঝিল থানার মা’মলার ব্যাপারে জানতে চাইলে উপকমিশনার সৈয়দ নূরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আ’সামিদের গ্রে’প্তারের চেষ্টা করছি।’