‘শি’শু বক্তা’ রফিকুল ইসলামের যত বি’তর্কি’ত বক্তব্য

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : এপ্রিল 8, 2021 03:21:50 অপরাহ্ন
0
16
views

রাষ্ট্রবি’রোধী উসকানিমূলক বক্তব্য ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অ’ভিযোগে ‘শি’শু বক্তা’ মাওলানা রফিকুল ইসলামকে বুধবার (৭ এপ্রিল) নেত্রকোনা থেকে আ’টক করেছে র‌্যা’পিড অ্যা’কশন ব্যা’টালিয়ন (র‌্যা’ব)। রফিকুল ইসলাম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রায়ই রাষ্ট্রবি’রোধী উসকানিমূলক ও বি’তর্কি’ত বক্তব্য দিতেন। একনজরে দেখে নেয়া যাক রফিকুলের যত বি’তর্কি’ত বক্তব্য-

প্রথম ভিডিও: গত ১০ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরের গাছা থানাধীন বোর্ডবাজার এলাকায় ওয়াজ মাহফিলে রফিকুল ইসলাম বলেন-

১। আমি মানি না রাষ্ট্রপতি, আমি রাষ্ট্রপতি মানি যদি রাষ্ট্রপতি ইসলাম মানে।

২। এই কচুর প্রধানমন্ত্রী মানি না, যদি ইসলামের বি’রুদ্ধে যায়।

৩। খোদার জমিনে, খোদার কোরআনের কথা হবে, কিসের প্রশাসনের অর্ডার? এই জন্যই তো আমি বলি, আমি কোনো অর্ডার মানি না, আমি মানি না। আমার পৃথিবীতে, আমার সংবিধানে, আমার ডিকশনারিতে আমার কোনো প্রধানমন্ত্রী নাই, রাষ্ট্রপতি নাই, এমপি নাই; যদি ইসলামের বি’রুদ্ধে যায়। মানি না দেশের প্রধানমন্ত্রী; মানি না রাষ্ট্রপতি আমি। আমি মানব না, আমারে জে’লে নিবা? রি’মান্ডে নিবা? তাইতো? তোমাদের সংবিধানে যা বলে, তোমাদের আইন যা বলে, তুমি তা করবা। আমার আল্লাহর আইন যা বলে আমি তাই করব।

৪। ইন্ডিয়ার বি’রুদ্ধে কথা বললে আবরার ফাহাদ হতে হয়, তার মানে ইন্ডিয়ার বি’রুদ্ধে কথা বলা এত মা’রাত্মক। তার মানে ইন্ডিয়ারও গোয়েন্দা সংস্থা এদেশে প্রভাব খাটায়।

দ্বিতীয় ভিডিওতে রফিকুল ইসলাম বলেন:

১। গুজরাটের কসাই যার হাতে মু’সলমানদের র’ক্ত লেগে আছে, সেই মোদির হাতে বাংলার সে’নাবা’হিনী, বাংলার পুলিশ লাল গোলাপের সংবর্ধনা দিবে, লাল গালিচার সংবর্ধনা দিবে, এটা হতে দেয়া হবে না। তার গ’লায় জুতার মালা পরিয়ে দেয়া হবে।

২। এই মোদির মতো কুত্তা বাংলাদেশে আসতে পারবে না।

৩। ১৪৪ ধারা জারি করবেন, ১৪৪ ধারা কোন ঘোড়ার ডিম?

৪। তোমাদের বলব মু’সলমান; যদি মেইন রোডে যেতে নাও পার, রাস্তার মোড়ে মোড়ে জুতা নিয়া দাঁড়ায়ে থাকবা। মোদি বাংলাদেশে ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যেক মু’সলমানের হাতে একটা করে জুতা থাকবে।

তৃতীয় ভিডিওতে তিনি বলেন:

১। আমরা বলতে চাই, মোদি যার হাতে র’ক্ত রঞ্জিত তার হাতে লাল গোলাপ থাকবেনা জুতার মালা গ’লায় দেয়া হবে।

২। যদি দেখা যায় ইন্ডিয়ায় মু’সলিম নিধন চলছে; কাশ্মীর, গুজরাটে, মায়ানমারে, ইরাক, ইরান, লিবিয়া, সিরিয়া এবং আফগানিস্তান পৃথিবীর যেকোনো অঞ্চলে মু’সলিম নিধন চলছে; ভারতের আ’দালতে কোনো এক শিয়া নেতা রিট করেছে কোরআনের ২৬টি আয়াত বদল করে দিতে হবে, তখন বুঝতে হবে আপনাকে তখন নরম ভাষায় বললে হবে না। ময়দানে অবতরণ করতে হবে, প্রয়োজনে আলাপ পরিবর্তন করতে চাওয়াদের গর্দান উড়াইয়া দিতে হবে।

৩। রবের হুকুম পাইছি, কোনো ব্যক্তি, কোনো দল, কোনো নেতা, এমপি, মন্ত্রী হোমড়া-চোমড়ার হুকুমের পরোয়া আমরা করি না।

৪। আগামীকাল বাদ জুমা মোদির বি’রুদ্ধে তীব্র আন্দোলন করতে হবে। আমরা সেখানে শরিক হব। প্রয়োজনে জীবন দিব, তবুও জায়গা থেকে পিছপা হব না। অ’স্ত্র নাই, শস্ত্র নাই, কিছুই নাই, ম’রে যাব; তবুও ম’রা পরে মনে করব আমরা সফল হয়েছি।

৫। যার হাতে র’ক্তে রঞ্জিত মু’সলমানদের হাত। যে এখনো বলতেছে আমি মু’সলমানদের মারব; কিংবা কয়েক দিন পর নির্বাচনের আগে আবার ইশতেহার দিবে, আমরা মু’সলমান নিধন কিছু করেছি আরও করব। এই হিন্দু মোদি যার হাতে এইভাবে মু’সলমানের র’ক্ত লেগে আছে।

৬। আমরা বলতে চাই, কসাই মোদি যার হাতে র’ক্তে রঞ্জিত তার হাতে লাল গোলাপ থাকবে না। জুতার মালা গ’লায় দেয়া হবে।

চতুর্থ ভিডিওতে ‘শি’শু বক্তা’ বলেন:

১। মোদি যদি বলে, আমরা মু’সলিম নিধন করব না। তাহলে মোদি বাংলাদেশে আসুক স’মস্যা নাই। আর যে মোদি এখন পর্যন্ত ও’পর আ’ক্রমণ অব্যাহত রেখেছে, মসজিদ ভাঙা অব্যাহত রেখেছে, কাশ্মীর, গুজরাটে মু’সলমানদের মা’রতেছে, এই মোদির মতো কুত্তা বাংলাদেশে আসতে পারবে না।

২। মোদি বাংলাদেশে ঢুকার সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যেক মু’সলমানদের হাতে হাতে জুতা থাকবে। মোদির জন্য তো বাংলাদেশে জুতার অভাব নাই। মোদি হলো আবু জেহেলের খালাতো ভাই।

৩। মোদি বাংলাদেশে আসলে বাংলাদেশের রাজপথ অচল হবে। আমরা মোদির বি’রোধিতা করতেছি কার জন্য, আল্লাহর জন্য।

৪। নবীর বি’রুদ্ধে যু’দ্ধ ঘোষণা করেছে ম্যাক্রোঁ। নবীর বি’রুদ্ধে যু’দ্ধ ঘোষণা করেছে মোদি। এই মোদিই গুজরাটের কসাই এবং ফ্রান্সের ম্যাক্রো এই দুই কুত্তারে ছাড়া যাদের মন চায় তাদের দাওয়াত দিক।

৫। ৯৪ শতাংশ মু’সলমানের অনুভূতি যে দল না বুঝে; বোঝা গেল সেই দল ব্যর্থ দল, সেই ব্যর্থ নেতা। সেই নেতা অযোগ্য নেতা, সেই দল অযোগ্য দল। অযোগ্যতা প্রকাশ করেন না, আমাদের সঙ্গে একমত হন, না করে দেন। মোদি না এলে কী হইছে?

পঞ্চম ভিডিওতে তিনি বলেন:

১। বাংলার জমিনে মোদিকে আসতে দেয়া হবে না। এটাই আগামী কালকে ইনশাআল্লাহ ওলামায় কেরাম বাংলাদেশে প্রমাণ করে দেখিয়ে দেবে। আগামীকাল ৬ মার্চ ওস্তাদ আল্লামা নূর হোসেন কাশেমী ঢাকায় আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবেন। মোদিকে জুতা দিয়ে গ্রহণ করা হবে। জুতার বাড়ি দিয়ে, মালা দিয়ে যারা তার পক্ষ নেবে; ওদেরকেও গ্রহণ করা হবে।

ষষ্ঠ ভিডিওতে রফিকুল বলেন:

১। শেখ হাসিনা কি ড. ওয়াজেদ সাহেবের সঙ্গে বিয়ের ডকুমেন্ট দেখাতে পারবে?

২। ছাত্রলীগ, যুবলীগ এই সমস্ত মোরতাদদের বলতে চাই, মোরতাদদের সঙ্গে জিহাদ ফরজ হয়ে আছে। হয় মরব; না হয় মারব। এই মাফিয়া স’রকারের হাতে আমরা জি’ম্মি। গ্লোবালাইজেশন এর যুগে কেউ ছাড় পাবি না। তোদের একটা একটাকে ধরে ধরে তোদের হাতগুলো ভে’ঙে দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ। একটা একটাকে ধর, মোরতাদদের শা’স্তি দাও।

৩। সকল ইসলামী দলের একজন আমীর নির্বাচিত কর। সকলে এক আমিরের নেতৃত্বে সারা বাংলাদেশ অচল করে দেওয়া হবে।

৪। প্রয়োজনে সে’নাবা’হিনীর হাতে ক্ষমতা যাবে।

গত ২৫ মার্চ রাজধানীর মতিঝিলে মোদিবি’রোধী বি’ক্ষো’ভে পুলিশের হাতে আ’টক হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর মুক্তি পেয়েছিলেন ‘শি’শু বক্তা’ খ্যাত মাওলানা রফিকুল ইসলাম।

মুক্তির পর ফেসবুক লাইভে এসে তিনি তখন বলেন, ‘আমি শুধু আপনাদের সমানে এসেছি একটা বি’ষয় জানানো জন্য যে, আমি এখন সম্পূর্ণ মুক্ত। পল্টন থানায় কিছুক্ষণ ছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি কাউকে দেখানোর জন্য সেখানে (মতিঝিলে) যায়নি। আমি ইসলামী মূল্যবোধ থেকে…। যে মোদি বাংলাদেশে আসবে, তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হবে, লাল গোলাপের শুভেচ্ছা দেওয়া হবে, সেটা দেখতে একজন মু’সলমান হিসেবে খা’রাপ লাগবে।’

রফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনায়, থাকেন গাজীপুরে। তিনি নেত্রকোনার পশ্চিম বিলা’শপুর সাওতুল হেরা মাদরাসার পরিচালক। রফিকুল ইসলাম রাজধানীর বারিধারায় মাদানী অ্যাভিনিউয়ের পাশে অবস্থিত জামিয়া মাদানীয়া বারিধারা মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদিস পড়েছেন। এ ছাড়া তিনি বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিকদল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অঙ্গসংগঠন যুব জমিয়তের নেত্রকোনা জে’লার সহসভাপতি। সুত্রঃ সময়