আওয়ামী লীগের পদ ব্যবহার করে বিএনপি নেতার প্রচারণা

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : মার্চ 31, 2021 06:22:12 অপরাহ্ন
0
25
views

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজে’লা বিএনপির উপদেষ্টা মো. ফিরোজ খানের বি’রুদ্ধে আওয়ামী লীগের পদ ব্যবহার করে এলাকায় পোস্টার, বিলবোর্ড টানানোর ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। ভুয়া পদ ব্যবহার করে রাতারাতি তিনি আওয়ামী লীগ নেতা সেজে প্র’তারণা করছেন বলে অ’ভিযোগ করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এ ঘটনায় উপজে’লা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষো’ভের সৃষ্টি হয়েছে।

বি’ষয়টি নিয়ে জে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বরাবর চিঠি দেওয়া হয়েছে। সেখানে ফিরোজ খানের বি’রুদ্ধে ত’দন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। এদিকে, বিএনপি নেতা ফিরোজ খানের আওয়ামী লীগের পদ ব্যবহার করায় ফরিদপুরের ৪নং আমলি আ’দালতে একটি মা’মলা হয়েছে। মা’মলাটি দা’য়ের করেছেন নগরকান্দা উপজে’লা আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য মো. বাবুল আক্তার।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা অ’ভিযোগ করে বলেন, ফিরোজ খান এলাকায় বিএনপির প্রভাবশালী নেতা। তিনি কয়েকবার বিএনপির সমর্থন নিয়ে তালমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। হঠাৎ করে তিনি উপজে’লা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন স্থানে পোস্টার, বিলবোর্ড টাঙিয়েছেন; যা বিএনপি নেতার প্র’তারণা। তাদের অ’ভিযোগ, বিগত ২০১৩ সালে উপজে’লা আওয়ামী লীগের যে কমিটি গঠন করা হয় সে কমিটিতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে তিনজন নির্বাচিত হন। তারা হলেন- মো. জামাল হোসেন মিয়া, মো. রওশন আলী ও মো. লিয়াকত আলী। এরপর সম্মেলন না হওয়ায় সেই কমিটিই বহাল রয়েছে।

এদিকে, ২০১৫ সালে জে’লা বিএনপির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নগরকান্দা উপজে’লা বিএনপির যে কমিটি অনুমোদন দেন সেই কমিটির ৪নং উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন ফিরোজ খান। দল থেকে পদত্যাগ না করে অন্য দলের পরিচয় দিয়ে প্র’তারণা করায় ফিরোজ খানের বি’রুদ্ধে ফুঁসে উঠেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। নগরকান্দা উপজে’লা আওয়ামী লীগের প্যাডে গণমাধ্যমে পাঠানো এক চিঠিতে বলা হয়, নগরকান্দা উপজে’লা বিএনপির বর্তমান উপদেষ্টা, স’ন্ত্রাসী, চাঁ’দাবাজ, অর্ধডজন মা’মলার আ’সামি ফিরোজ খান সম্প্রতি নগরকান্দা উপজে’লা আওয়ামী লীগের ভুয়া যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদ ব্যবহার করে পোস্টার, বিলবোর্ড লাগিয়ে প্র’তারণার মাধ্যমে এলাকায় নিরীহ জনগণ, ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বিভিন্নভাবে হু’মকি ও ভ’য়ভীতি দেখাচ্ছেন।

গত উপজে’লা নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বি’রুদ্ধে প্রচারণায় অংশ নেন। তালমা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও সে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বি’রুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে পরাজিত হন। চিঠিতে বলা হয়, ফিরোজ খানের বি’রুদ্ধে এলাকায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বি’রুদ্ধে হা’মলা ও মা’মলার অ’ভিযোগ রয়েছে। তার হা’মলা ও মা’মলার কারণে অনেক আওয়ামী লীগের কর্মী এলাকা ছাড়া।

এদিকে আওয়ামী লীগের পরিচয় ব্যবহার করায় ফিরোজ খানের বি’রুদ্ধে ফরিদপুরের ৪নং আমলি আ’দালতের সিনিয়র জু’ডিশিয়াল আ’দালতে গত ২৭ মার্চ একটি মা’মলা দা’য়ের হয়েছে। মা’মলায় ফিরোজ খানকে একমাত্র আ’সামি করে এ মা’মলাটি দা’য়ের করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল আক্তার। মা’মলার আর্জিতে তিনি ফিরোজ খানের বি’রুদ্ধে বিএনপি নেতা হওয়া সত্ত্বেও আওয়ামী লীগের পদ ব্যবহার করে প্র’তারণার অ’ভিযোগ আনেন।

এ বি’ষয়ে জে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা জানান, আমাদের কাছে যে ডকুমেন্ট রয়েছে তাতে ফিরোজ খান স্থানীয় বিএনপির উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন। তার বি’ষয়ে ত’দন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নগরকান্দা উপজে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে চিঠি দেওয়া হয়েছে। উপজে’লা আওয়ামী লীগের চিঠি পাওয়ার পরই তার বি’রুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ বি’ষয়ে ফিরোজ খান বলেন, আমি ২০১৬ সালে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেছি, সেটি কমিটি অ্যাকসেপ্ট করেছে। তারপর ২০১৬ সালে সং’সদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী আমাদের বাড়িতে আমন্ত্রিত হয়ে আসলে তখন আমি আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগদান করি।

তিনি বলেন, আমার বি’রুদ্ধে নতুন করে মা’মলা হয়েছে সেটি লোক মারফত শুনেছি। আর আমার বি’রুদ্ধে মাত্র একটি মা’মলা রয়েছে, সেটি মি’থ্যা মা’মলা। এছাড়া এলাকায় কেউ বলতে পারবে না যে, আমি কাউকে হু’মকি ধমকি দিয়েছি। আমাকে হেয় করতে অনেকে আমার বি’রুদ্ধে অ’পপ্রচার চালাচ্ছেন। সুত্রঃ যুগান্তর