বাল্যবিয়ে ঠেকিয়ে পুরস্কারপ্রাপ্ত ছাত্রীই বাল্যবিবাহের শি’কার

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : ফেব্রুয়ারী 19, 2021 06:16:10 অপরাহ্ন
0
18
ভিউ

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বাল্যবিবাহ ঠেকিয়ে বাইসাইকেল পুরস্কার পাওয়া সেই ছাত্রীই বাল্যবিবাহের শি’কার হয়েছে। ষষ্ঠ শ্রেণিতে থাকাকালে সে বাল্যববাহ ঠেকিয়ে ইউএনও’র কাছ থেকে পুরস্কার পেয়েছিল। গতকাল বৃহস্পতিবার উপজে’লার ভাওড়া ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। মেয়েটির বিদ্যালয় সূত্রমতে, বাল্যবিবাহ ঠেকানোয় ষষ্ঠ শ্রেণিতে থাকাকালীন ওই মেয়ে তৎকালীন মির্জাপুর উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইসরাত সাদমীনের কাছ থেকে একটি বাইসাইকেল উপহার পেয়েছিলেন।

আজ শুক্রবার সকালে মেয়েটির বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, বিবাহ উপলক্ষে বাড়ির চারপাশে নানা রঙের বাতি দিয়ে সাজানো হয়েছিল। মেয়েটির মা ও পরিবারের সদস্যরা জানান, ষষ্ঠ শ্রেণিতে থাকাকালীন বাল্যবিবাহ ঠেকিয়ে বাইসাইকেল পুরস্কার পেয়েছিল ওই মেয়ে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিয়ের পর মেয়েটি শ্বশুর বাড়ি চলে গেছে। তারা আরও জানান, জন্ম সনদ দিয়ে কাজীর মাধ্যমে বিবাহ রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। তবে মেয়েটির মা জন্ম সনদ দেখাননি।

বিবাহ নিবন্ধন করা কাজী মোসলেম উদ্দিন জানান, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দেওয়া জন্ম সনদে বয়স ১৮ বছরের বেশি থাকায় তিনি বিবাহ রেজিস্ট্রি করেছেন। তবে ওই সনদটির নম্বর অনলাইনে যাচাই করে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় ইউপি মেম্বর মো. শাকিল আহমেদ জানান, তিনি গতকাল দুপুরে দাওয়াত খেয়ে বিয়ে বাড়ি থেকে চলে যান। এরপর আর কিছু জানেন না।

এ বি’ষয়ে মির্জাপুর উপজে’লা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. জুবায়ের হোসেন বলেন, যে জন্ম সনদের মাধ্যমে বিবাহ রেজিস্ট্রি করা হয়েছে, তা ভুয়া হলে সংশ্লিষ্ট সবার বি’রুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সুত্রঃ আমাদের সময়