স্যু’টকেসব’ন্দি লা’শের র’হ’স্য উ’দ্ধার করতে গিয়ে বে’রিয়ে এলো চা’ঞ্চল্যকর তথ্য

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : ফেব্রুয়ারী 4, 2021 11:34:45 অপরাহ্ন
0
174
ভিউ

ময়মনসিংহের আলোচিত স্যু’টকেসব’ন্দি লা’শের র’হ’স্য উ’দ্ধার করতে গিয়ে বে’রিয়ে এসেছে চা’ঞ্চল্যকর আরও তথ্য। নি’ষ্ঠু’রভাবে গৃ’হকর্মীকে হ’’..র পর লা’০ শ গু”ম করা হয় স্যু’টকেসে ভ’রে। তবে এটিই প্রথম ঘটনা নয়। বেদেনা নামের গৃ’হকর্মীকে নি’ষ্ঠুর নি’০ র্যাতন চা’লা’নোর ঘটনায় ২০১৪ সালে মা’ম’লা হয় জেসির বি’রু’দ্ধে। কিন্তু জেসিরা প্র’ভাবশালী হওয়ায় আপস রফা করতে বা’ধ্য হয় নি’০ র্যা’তিত মে’য়েটির প’রিবার।

নগরীর বলা’শপুর আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দা খলিল মিয়ার মে’য়ে বেদেনা খাতুন। বিয়ের দেড় বছরের মাথায় এক ছে’লে স’ন্তান নিয়ে স্বা’মীর সংসার ছা’ড়েন। প্রতিবেশী মনিকা বেগম ও জ্যোতি আক্তার নগরীর বাঘমা’রা এলাকায় রিফাত জেসমিন জেসির বাসায় মাসে তিন হাজার টাকা বেতনে কাজে দেন বেদেনাকে। জেসি নগরীর প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী গোলাম সাম’দানীর মে’য়ে। তারা নগরীর অভিজাত প’রিবার হিসেবে পরিচিত।

জেসির স্বা’মী মেরিন ইঞ্জিনিয়ার আবুল খায়ের মো. জাকির হোসেন ওরফে সোহাগ বাসায় থাকতেন ছয় মাস। বাকি সময় থাকতেন সমুদ্রে। ২০১১ সালের মাঝামাঝিতে বেদেনা জেসির বাসায় কাজে যোগ দেন। এরপর একবারের জন্যও বেদেনাকে তার প’রিবারের স’দস্যদের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হ’য়নি। মাস শেষে বেতন চাইলে কিংবা বাড়ির লো’কজনের স’ঙ্গে দেখা করতে চাইলে নেমে আসত নি’ষ্ঠুর নি’ ০র্যাতন। কয়েক দফা বে’দেনার বা’বা মে’য়েকে দেখতে গিয়ে ব্য’র্থ হন। গৃ’হকর্ত্রী জেসি সাফ জানিয়ে দেয়, মনিকা ও জ্যোতির কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকায় কিনেছে বেদেনাকে।

কথায় কথায় গ’রম খু’ন্তির ছ্যাঁ’কা, ছু”রি দিয়ে আঁ’চড় কা”টা ও গর’ম তে’ল ঢে’লে দেওয়া হতো বেদেনার শ’রীরে। শুধু বেদেনা নন, একই সময় আরেক গৃ’হকর্মী মারুফার ও’পরও চা’লানো হতো নি’ষ্ঠুর নি’ ০র্যাতন। একটি কক্ষে তা’লাব’দ্ধ করে রাখা হতো তাদের। একবার বেদেনার বাবা মে’য়ের স’ঙ্গে দেখা করতে গেলে তাকে জানানো হয়, বেদেনা এক ছে’লের স’ঙ্গে পা’লিয়ে গেছে।

শ’রীরের বিভিন্ন স্থানে ছ্যাঁ’কা, গ’রম তে’ল ঢে’লে নি”০র্যাত’ন চা’লিয়ে একটি হাত’ ভে’ঙে দেওয়ার পর বাড়িতে দিয়ে আসার কথা বলে রাতের বেলায় বেদেনাকে বোরকা পরিয়ে নিজেদের গাড়িতে করে বের হয়। নগরীর ফুলবাড়িয়া সড়কের পশু হা’সপাতা’লের সামনে নি’র্জন স্থানে চলন্ত গাড়ি থেকে ধা’ক্কা দিয়ে বেদেনাকে ফে”লে যায় গৃ’হকর্ত্রী ও গৃহ’কর্তা। ২০১৪ সালের ৬ মার্চ ভোররাতে রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বেদেনাকে উ’দ্ধা’র করেন এলাকাবাসী। ৪৬ দিন হা’সপাতা’লে চি’কিৎসা নিয়ে সু’স্থ হন বেদেনা।

ওই ঘটনায় তার বাবা খলিল মিয়া বা’দী হয়ে ওই বছরের ৮ মে থানায় মা’ম’লা করেছিলেন। মা’ম’লাটিতে জেসি ও তার স্বামী সোহাগসহ চারজনকে আ’সা’মি করা হয়েছিল। মা’ম’লাটি ময়মনসিংহ কোতোয়ালি থানার এস’আই মোহাম্ম’দ নাসিম ত’দ’ন্ত শেষে ওই বছরের ৯ সেপ্টেম্বর আ’দালতে অ’ভিযোগপত্র দেন। কিন্তু প্র’ভাবশালী প’রিবারের জেসি বিভিন্নভাবে চা”প প্র’য়োগ করে ঘটনাটি মী’মাংসা করে ফে’লে। ২০১৬ সালে মা’ম’লাটি প্র’ত্যা’হার করে নেয় বা’দীপক্ষ।

নি০’ র্যাতনের ঘটনা মনে হলে এখনও আঁ’তকে ওঠেন বেদেনা। তিনি বর্তমানে ময়মনসিংহ নগরীর গাঙ্গিনাপাড় এলাকায় একটি বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করেন। বৃহস্পতিবার মোবাইল ফোনে সমকালকে তিনি বলেন, জেসির হা’ত থেকে বেঁ’চে ফিরব তা কোনোদিন ভাবিনি।

মা’ম’লা প্র’ত্যাহার করে নেওয়া প্রসঙ্গে বেদেনা বলেন, অনেক লো’কজনের চা”পে একবার ভালো হওয়ার সুযোগ দিয়েছিলাম জেসিকে। কিন্তু সে সো’ধরায়নি। এখন জেসির ক’ঠোর বি’চার চাই, আর যাতে কোনো মা’য়ের স’ন্তানকে এভাবে নি’০ র্যাতন না করতে পারে সে।

মা’নবাধিকার জোটের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম চুন্নু বলেন, ২০১৪ সালে গৃহকর্মীকে নি’০ র্যাতনের সময় তারা বি’চার দা’বিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছিলেন। কিন্তু একটা পর্যায়ে বা’দীপক্ষ আপস-মী’মাংসায় চলে যায়। আগের ঘটনার বি’চার না হওয়ায় নতুন ঘটনার জন্ম হয়েছে। নি০ ‘র্যাতন চা’লি’য়ে পার পেয়ে যাওয়ায় হ’’..র মতো অ’প’রাধ করেও পার পাওয়ার চে’ষ্টা ছিল জ’ড়িতদের। এ ধরনের ঘটনায় ক’ঠোরত’ম শা’স্তি হলে সমাজে গৃ’হকর্মী নি’০র্যা’তন রো’ধ হতে পারে।

পিবিআই ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার গৗতম কুমার বিশ্বাস বলেন, গৃহ’কর্মীকে হ’’.. ও গু’মের ঘটনায় তারা জেসিকে ইতোমধ্যে গ্রে’প্তার করেছেন। আগেও গৃ’হকর্মী নি০ ‘র্যাতনের কিছু তথ্য তারা পেয়েছেন। সেগুলো মাথায় রেখেই মা’ম’লার কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

সূত্রঃ সমকাল