মোবাইলে স্ত্রী’র মৃ’ত্যুর খবর শুনে শিক্ষক স্বামীর মৃ’ত্যু, ৮ দিনের শিশুর এতিম দায়িত্ব নেবে কে?

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জানুয়ারী 14, 2021 07:39:57 অপরাহ্ন
0
79
ভিউ

পটুয়াখালিতে স্ত্রী’ কলি বেগমের(২০) মৃ’ত্যু’র খবর শুনে স্বামী মোস্তফা কামাল(২৭) মা’র যান। এতিম হলো ৮ দিনের সন্তান। বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) সকালে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে এই ঘটনা ঘটে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, প্রায় ৬ বছর আগে মোস্তফার সাথে পটুয়াখালি শহরের টাউন কালিকাপুর এলাকার মকবুল হোসেনের কন্যা কলির বিয়ে হয়। মোস্তফা শহরের ফজিলাতুননেছা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে খন্ডকালীন ইংরেজি শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা করে আসছিলেন।

কলি বেগম চলতি মাসের ৬ তারিখ চিকিৎসকের পরাম’র্শ অনুযায়ী সন্তান প্র’সবের জন্য শহরের মায়ো ক্লিনিকে ভর্তি হয়। ওই দিনই অ’স্ত্রপ’চা’রের মাধ্যমে পুত্র সন্তান প্র’সব করেন কলি। পরে সুস্থ হয়ে ১১ জানুয়ারি ক্লিনিক থেকে বাসায় যান।

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে কলি অ’সুস্থ হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক কলির স্বামী মোস্তফা সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে স্ত্রী’কে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে নিয়ে যায়। চিকিৎসক তাৎক্ষণিক কলিকে ভর্তি করেন এবং চিকিৎসা শুরু করেন। চিকিৎসকের কথায় ওষুধ কিনতে হাসপাতা’লের সামনে যান মোস্তফা।

এসময় মোবাইলে স্ত্রী’র মৃ’ত্যু’র খবর শুনে সেখানেই ঢ’লে পড়েন মোস্তফা। স্থানীয় লোকজন তাকে হাসপাতা’লের জরুরী বিভাগে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. মাজাহারুল ইস’লাম তাকে মৃ’ত ঘোষণা করেন।

পটুয়াখালী মেডিকেল কলজে হাসপাতা’লের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, মৃ’ত কলি বেগম বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে হাসপাতা’লে গু’রুত’র অ’সুস্থ অবস্থায় ভর্তি হন। ভর্তি হওয়ার ৮ থেকে ১০ মিনিট পর তিনি মা’রা যান। স্বামী-স্ত্রী’র মৃ’ত্যু’র পর তাদের একমাত্র নবজাতক সন্তানকে নিয়ে দুই পরিবারের আ’হাজা’রিতে ভা’রী হয়ে উঠেছে বাঁশবাড়িয়া গ্রাম।