বাড়ির প্রধান ফটকে বাঁশের বেড়ায় এক বছর ধরে অ’বরু’দ্ধ প্রবাসীর প’রিবার

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জানুয়ারী 12, 2021 08:43:55 অপরাহ্ন
0
71
ভিউ

নরসিংদীর পলা’শে বাড়তি দামে দিয়ে জমি না কেনায় বসতঘরের প্রধান ফটকের সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে এক প্রবাসীর পরিবারকে অ’বরু’দ্ধ করে রাখা হয়েছে। স্থানীয় প্র’ভাবশালীদের সহায়তায় অগ্নি দাস নামের এক ব্য’ক্তি ওই প’রিবারকে প্রায় এক বছর ধরে অ’বরু’দ্ধ করে রেখেছে বলে অ’ভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে একাধিকবার ঘটনাটি জানিয়েও কোনো সমাধান পায়নি অ’বরুদ্ধ ওই প’রিবারটি।এ ঘটনা উপজে’লার জিনারদী ইউনিয়নের পন্ডিত পাড়া গ্রামে।

এলাকাবাসী ও ভু’ক্তভো’গী ওই প’রিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পন্ডিত পাড়া গ্রামের অগ্নি দাসের কাছ থেকে প্রায় ৫ বছর আগে একই গ্রামের সৌদি প্রবাসী প্রদীপ কুমার সূত্রধর দেড় শতাংশ জমি ক্রয় করেন। পরে ওই জমিতে তিনতলা একটি ভবন নির্মাণ করার পর প্রবাসী প্রদীপের স্ত্রী, দুই শি’শু ক’ন্যাসহ পরিবারটি বসবাস শুরু করে। ভবন নির্মাণ থেকে শুরু করে গত এক বছর আগে পর্যন্তও উভ’য় পক্ষের মধ্যে কোনো স’মস্যা ছিল না। প্রায় এক বছর ধরে ভবনের পাশে অবস্থিত প্রতিবেশী অগ্নি দাস এর আরও কিছু জমি চারগুণ দামে কেনার জন্য প্রবাসী প্রদীপ কুমারকে চা’প প্রয়োগ করতে থাকেন অগ্নি দাস।

প্রদীপ কুমার বাজার মূল্যের চেয়ে বাড়তি দামে নতুন করে অগ্নি দাসের জমি কেনায় রাজি না হলে স্থানীয় একটি প্র’ভাবশালী মহলের সহায়তায় প্রদীপের ঘরের প্রবেশ পথে বাঁশের বেড়া দিয়ে অ’বরুদ্ধ করে দেয় অগ্নি দাস। এতে এক প্রকার বা’ধ্য হয়ে ওই ভবনের একপাশে নীচতলায় তৈরি ছোট দোকানের ভেতর দিয়ে ঘরে আসা-যাওয়া করেন প্রদীপ কুমারের পরিবার।

ভু’ক্তভো’গী প্রবাসী প্রদীপ কুমারের ছোট ভাই গৌতম সূত্রধর বলেন, আমার ভাই এখানে জমি কিনে ভবন নির্মাণ করার এক বছর পর পর্যন্তও কোনো স’মস্যা ছিল না। এক বছর আগে প্রতিবেশী অগ্নি দাস তার আরও দেড় শতাংশ জমি কেনার জন্য আমার প্রবাসী ভাইকে প্রস্তাব দেয়। তখন ভাই তার জমি বর্তমান বাজার মূল্য অনুয়াযী কেনার ইচ্ছা পোষণ করেন। কিন্তু বর্তমান বাজার মূল্যে এই জমির দাম দেড় থেকে ২ লাখ টাকা কিন্তু অগ্নি দাস সেই জমির দাম চাইছেন প্রায় ২০ লাখ টাকা। তাই আমরা জমি কেনার জন্য রাজি হইনি।

তিনি আরও বলেন, এরপর অগ্নি দাস ক্ষি’প্ত হয়ে স্থানীয় একটি প্র’ভাবশালী মহলের সহায়তায় তিনতলা ভবনটির প্রবেশ ফটকের সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে চ’লাচলের পথ ব’ন্ধ করে দেয়। এতে আমার প্রবাসী ভাই এর স্ত্রী সম্পা রানী সূত্রধর ও দুই শি’শু কন্যাকে ওই ঘরে প্রবেশ করতে হলে দোকানের সুড়ঙ্গ দিয়ে প্রবেশ করতে হয়। বি’ষয়টি নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে একাধিকবার বলেও কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি বলে অ’ভিযোগ করেন গৌতম।

জানতে চাইলে অগ্নি দাস বলেন, প্রবাসী প্রদীপ কুমার চলাচলের রাস্তা না রেখেই ভবন নির্মাণ করেছেন। এখন আমার জমি দিয়ে তাদের চলাচল করতে দিতে পারি না। আমি অতিরিক্ত দামে জমি কিনতে চা’প দেইনি বরং তারা জমির দাম কম বলছেন। এছাড়া আমার জমিতে ম’য়লা আ’বর্জনা ফেলছেন।

জিনারদী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য ওসমান মোল্লা বলেন, ঘটনাটি আমি আংশিক শুনেছি। পুরো বি’ষয়টি খোঁজ-খবর নিয়ে দেখতে হবে।

এ ব্যাপারে উপজে’লা নির্বাহী কর্মবর্তা রুমানা ইয়াসমিনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনাটি আমার জানা নেই। এ বি’ষয়ে অ’ভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।