না’রী সহকর্মীকে জ’ড়িয়ে ধ’রে এখন বলছেন ‘ভু’ল বো’ঝাবুঝি’

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জানুয়ারী 11, 2021 07:50:42 অপরাহ্ন
0
57
ভিউ

অফিস চলাকালীন নারী অফিস স’হকারীকে শ্লী’লতাহা’নির চে’ষ্টার অ’ভিযোগ সাতক্ষীরা গণপূর্ত অফিসের উচ্চমান অফিস সহকারীর বি’রুদ্ধে। নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে শ্লী’লতাহা’নির ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে লিখিতভাবে অ’ভিযোগ দিয়েছেন ওই না’রী অফিস সহকারী। এ ঘটনায় তিন সদস্যের ত’দন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

প্রতিবেদন পেলে এ ঘটনায় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী প্রকৌশলী। অন্যদিকে, ঘটনাটি মী’মাংসার চে’ষ্টা করছেন অফিস স্টাফরা।

ঘটনার বি’ষয়ে বিস্তারিত জানতে সোমবার (১১ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে সাতক্ষীরা গণপূর্ত অফিসে গেলে নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শহিদুল ইসলাম, অ’ভিযোগের ত’দন্তকারী টিমপ্রধান স্টাফ অফিসার ফিরোজ আলীসহ দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের পাওয়া যায়নি।

ওই না’রী গণপূর্ত উপবিভাগ-১ এর অফিস সহকারী কাম ক’ম্পিউটার অপারেটর পদে কর্মরত। গত ৩ জানুয়ারি লিখিত অ’ভিযোগে তিনি জানান, অফিসের উচ্চমান অফিস স’হকারী আবুল হাসান বিভিন্ন সময় তাকে কু’প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। গত ৩১ ডিসেম্বর অফিসে একা পেয়ে তাকে কু’প্রস্তাব দেন ও জ’ড়িয়ে ধ’রার চে’ষ্টা করেন। এ ঘটনায় প্রতিকার ও ‘নিরাপত্তার দা’বি জানান ওই না’রী অফিস সহকারী।

এ ঘটনায় ৪ জানুয়ারি স্টাফ অফিসার ফিরোজ আলীকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি ত’দন্ত টিম গঠন করেন নির্বাহী প্রকৌশলী। কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে ত’দন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। তবে এখনো প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়নি।

ত’দন্তকারী টিমের প্রধান সাতক্ষীরা গণপূর্ত বিভাগের স্টাফ অফিসার ফিরোজ আলী ঘটনাটি অ’স্বীকার করে বলেন, ‘আমি কোনো ত’দন্ত করছি না। কোনো কাগজ পাইনি। টিমপ্রধান কে বানিয়েছে সেটিও জানি না।’

মোবাইল ফোনে সাতক্ষীরা গণপূর্তের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনার বি’ষয়ে লিখিত অ’ভিযোগ পাওয়ার পর তিন সদস্যের ত’দন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঘটনাটি এখনো ত’দন্তাধীন। ত’দন্ত প্রতিবেদন পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যদিকে ঘটনাটি নিয়ে উভ’য় পক্ষের মধ্যে সমঝোতা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী প্রকৌশলীর ব্য’ক্তিগত সহকারী (পিএ-২) গোলাম মোস্তফা। তিনি বলেন, ‘আমরা একত্রে বসে বি’ষয়টি স’মাধান করেছি। একটি আ’পসনামাও করা হয়েছে।’

গণপূর্ত বিভাগের অফিস সহকারী সজল গাইন জানান, ঘটনাটি নিয়ে স্টাফদের মধ্যে মী’মাংসা করার জন্য মিটিংয়ে আমাকে ডাকা হয়েছিল। সেখানে আবুল হাসান সবার সামনে ঘটনাটি স্বী’কার করে বলেন, একটা অ’নাকাঙিক্ষ’ত ঘটনা ঘটেছে। আমি দশজনের সামনে ক্ষ’মা চাচ্ছি।

অ’ভিযোগের বি’ষয়ে সাতক্ষীরা গণপূর্ত অফিসের উচ্চমান অফিস সহকারী আবুল হাসান বলেন, ‘আমরা স্টাফরা সবাই মিলে বি’ষয়টা মী’মাংসা করে ফে’লেছি। ও তেমন কিছু না। উভ’য়ের মাঝখানে একটু ভু’ল বো’ঝাবুঝি হয়েছিল। এটা নিয়ে সামনে না এগোলে ভালো হয়।’

সূত্রঃ জাগোনিউজ