উপজেলা চেয়ারম্যানের বা’ধায় মাদ্রাসার কাজ ব’ন্ধ

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জানুয়ারী 9, 2021 02:12:06 অপরাহ্ন
0
25
ভিউ

বাহুবলে উপজে’লা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমানের বা’ধায় বন্ধ হয়ে গেছে লোহাখলা ইসলামিয়া মহিলা মাদ্রাসার নির্মাণ কাজ। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষো’ভ বিরাজ করছে। প্রতিকার চেয়ে গত শুক্রবার রাতে বাহুবল সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার বরাবর অ’ভিযোগ করেছেন মাদ্রাসাটির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাবেক উপজে’লা চেয়ারম্যান আবদুল কাদির চৌধুরী।

অ’ভিযোগ সূত্রে প্রকাশ, সম্প্রতি বাহুবল উপজে’লার লোহাখলা গ্রামে ‘লোহাখলা ইসলামিয়া মহিলা মাদ্রাা’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এলাকাবাসীর সহায়তায় প্রতিষ্ঠানটির নির্মাণ কাজ চলছিল। কিন্তু কাজ শুরুর পর থেকেই রাস্তায় চলাচলে বা’ধা-নিষেধ প্রদান করে আসছেন বাহুবল উপজে’লা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান।

অ’ভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, এ ব্যাপারে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বহুমুখী তৎপরতা চা’লিয়েও সফল হতে পারেননি। ফলে নির্মাণাধীন মাদ্রাসাটির কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। বি’ষয়টিকে ঘিরে এলাকার লোকজনের মাঝে ক্ষো’ভ বিরাজ করছে।

এ নিয়ে আইনশৃঙ্খলা অ’বনতি হওয়ার আ’শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে শুক্রবার রাতে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও বাহুবল উপজে’লা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির চৌধুরী প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে নির্মাণ কাজ চা’লিয়ে যেতে বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন করেছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সাবেক উপজে’লা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির চৌধুরী বলেন, মহিরা মাদ্রাসা স্থাপনের জন্য আমি আমার বাড়ির একটি অংশ দান করে দিয়েছি। কিন্তু বর্তমান উপজে’লা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান মাদ্রাসায় আসা-যাওয়ার রাস্তায় বাঁ’ধা দিচ্ছেন। গ্রামবাসী অনুরোধ করলেও তিনি কারও কথা শুনছেন না। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ‘রাস্তা দেব না।’ যার কারণে মাদ্রাসা নির্মাণের কাজ বন্ধ রয়েছে।

বর্তমান উপজে’লা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান অ’ভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই সাবেক উপজে’লা চেয়ারম্যান আবদুল কাদির চৌধুরী বিভিন্নভাবে আমার পেছনে লেগে আছেন। এখন নিজের বাড়িতে চারটি খুঁটি গেঁড়ে দাবি করছেন মহিলা মাদ্রাসা দেবেন। আমার বাড়ির ও’পর দিয়ে রাস্তা দিতে হবে। আমি বলছি, মহিলা মাদ্রাসা দিলে নিরাপদ জায়গায় দিতে হবে। তিনি কথা শুনছেন না।