তাপসের ভে’ঙে দেওয়া দোকান মালিকদের নিয়ে মাঠে নামছেন খোকন

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জানুয়ারী 8, 2021 11:16:18 অপরাহ্ন
0
133
ভিউ

রাজধানীর গু’লিস্তানের ফুলবাড়িয়া সুপার মার্কেট-২ এর নকশাবহির্ভূত দোকান উ’চ্ছেদকে কেন্দ্র করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সাবেক ও বর্তমান মেয়রের বি’রোধ প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছে। প্রায় ৩৫ কোটি টাকা আ’ত্মসাতের অ’ভিযোগে নিজের বি’রুদ্ধে মা’মলা হওয়ার পর এবার দোকান মালিকদের নিয়ে মাঠে নামছেন সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন।

অ’বৈধ দোকান উ’চ্ছেদে গত ৮ ডিসেম্বর মার্কে’টে অ’ভিযান শুরু করে ডিএসসিসি। প্রথম’দিনের অ’ভিযান দোকানিদের বা’ধার মুখে পড়লেও ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩৪১টি দোকান উ’চ্ছেদ করা হয়েছে।

ক্ষ’তিপূরণ ও পূর্নবাসনের দাবিতে শনিবার (৯ জানুয়ারি) হাইকোর্ট সংলগ্ন কদম ফোয়ারার সামনে মা’নববন্ধনের ঘোষণা দিয়েছেন দোকানিরা। ডিএসসিসির সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন এ মা’নববন্ধনে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে। সাবেক মেয়রের জনসংযোগ কর্মকর্তা হাবিবুল ইসলাম সুমন বি’ষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দোকান বৈধতা দেওয়ার কথা বলে প্রায় ৩৫ কোটি টাকা আ’ত্মসাতের অ’ভিযোগে গত ২৯ ডিসেম্বর সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনসহ সাতজনের বি’রুদ্ধে মা’মলা করেন দোকান মালিক সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন। সাঈদ খোকন ছাড়াও ডিএসসিসির সাবেক প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ইউসুফ আলী সরদার, সাবেক উপ-সহকারী প্রকৌশলী মাজেদ, কামরুল হাসান, হেলেনা আক্তার, আতিকুর রহমান স্বপন ও ওয়ালিদকে মা’মলায় আ’সামি করা হয়।

আ’দালত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) মা’মলাটি ত’দন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী ৩১ জানুয়ারি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ রয়েছে।

মা’মলার আবেদনে বলা হয়, ২০১৫ সালের ২১ জুন থেকে ২০১৯ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রাজধানীর ফুলবাড়িয়া সুপার মার্কেট-২ এর এ ব্লকে নির্মিত নকশাবহির্ভূত স্থাপনাগুলো বৈধতা দেওয়ার কথা বলে আ’সামিরা বিভিন্ন সময় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রায় ৩৪ কোটি ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৫৭৫ টাকা নিয়েছেন। তবে পরে তাদের সেসব দোকান উ’চ্ছেদ হলেও তারা টাকা ফেরত পাননি।

ব্যবসায়ীদের দাবি, উচ্চ আ’দালতের নির্দেশ এবং সিটি করপোরেশন সভার মাধ্যমে এসব দোকানের বৈধতা দিয়েছিলেন সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন। প্রতিটি দোকানের বিপরীতে ট্রেড লাইসেন্স এবং নির্দিষ্ট পরিমাণ ভাড়া আদায় করেছে ডিএসসিসি। কিন্তু এই দোকানগুলো অ’বৈধ উল্লেখ করে সেগুলো উ’চ্ছেদে নেমেছেন বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস।

এর আগে দোকান উ’চ্ছেদের বি’রোধিতা করে সাঈদ খোকন বলেছিলেন, ডিএসসিসির বোর্ড মিটিংয়ে ওই মার্কে’টের নতুন নকশা অনুমোদন হয়। সে অনুযায়ী, বকেয়া অর্থ আদায় করে ব্যবসায়ীদের কাছে সেসব দোকান বরাদ্দ দেওয়া হয়।

তিনি অ’ভিযোগ করেন, মেয়র ফজলে নূর তাপস ব্যবসায়ী নেতা দেলোয়ার হোসেন দেলুকে দিয়ে নোং’রামি করাচ্ছে। যার মাধ্যমে তার নিজের ও দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

সম্প্রতি ডিএসসিসির ৪ নম্বর ওয়ার্ডে অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের (এসটিএস) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, সুশাসিত ঢাকা আমাদের ইশতেহারের মূল প্রতিপাদ্য বি’ষয়। সুশাসিত ঢাকা ছাড়া উন্নত ঢাকা গড়া সম্ভব নয়। সুতরাং কোনো ব্যক্তি যদি এতে হেয় প্রতিপন্ন হন, লজ্জিত হন, সেটা সেই ব্যক্তির বি’ষয়।

তিনি এসময় বলেন, অ’বৈধ দ’খলদার উ’চ্ছেদের কার্যক্রম চলমান থাকবে। নকশাবহির্ভূত দোকান উ’চ্ছেদে চলমান অ’ভিযান কোনো ব্যক্তির বি’রুদ্ধে নয়, সকল অ’বৈধ দ’খলদারদের বি’রুদ্ধে। কোনভাবেই এই কার্যক্রমকে বা’ধাগ্রস্ত করা যাবে না। আমরা কোনোভাবেই সেটাতে আপস করবো না।

সূত্রঃ পূর্বপশ্চিমবিডি