মা’মলা করে সা’ক্ষীসহ একঘরে এক আ’ইনজীবী

স্বাধীন নিউজ ২৪.কম
প্রকাশ : জানুয়ারী 7, 2021 07:47:43 অপরাহ্ন
0
30
ভিউ

ঝিনাইদহের মহেশপুরে জমি নিয়ে বি’রোধের জেরে হা’মলার ঘটনায় মা’মলা করায় সাক্ষীর পরিবারসহ বা’দী আইনজীবীকে একঘরে করে দেওয়ার অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই আইনজীবীর নাম নুর-ই-আলম। মাসখানেক ধরে উপজে’লার জলিলপুর গ্রামের দুটি পরিবারের ১০ জন সদস্য কারও সঙ্গে মেলামেশা করতে পারছেন না। গ্রামের দোকানিরাও তাঁদের কাছে পণ্য বিক্রি করছেন না। সব মিলিয়ে দুর্বি’ষহ অবস্থা তাঁদের।

আইনজীবী নূর-ই-আলমের ভাষ্য, তিনি ঢাকায় আইন পেশায় যুক্ত। তাঁর বাবা শামছুল আলম মহেশপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর। তাঁর চার বোন। তাঁদের মধ্যে একজনের বিয়ে হয়েছে। অপর তিনজন জলিলপুর গ্রামেই থাকেন। গ্রামের মহিদুল ইসলাম, কিয়ামত আলী ও নাজিম উদ্দিনের সঙ্গে জমি নিয়ে তাঁদের বি’রোধ চলছে।

এর জেরে গত ২০ সেপ্টেম্বর রাত নয়টার দিকে তাঁরা তাঁর বাড়িতে হা’মলা চালান। তাঁরা তাঁকে ধা’রালো অ’স্ত্র দিয়ে আ’ঘাত করতে গেলে তাঁর বোনরা তাঁকে রক্ষা করতে আসেন। তখন তাঁর এক বোনকে মা’রধর করা হয়। পরের দিন তিনি ঝিনাইদহ আ’দালতে এই তিনজনের নামে মা’মলা করেন। এই মা’মলা দা’য়েরের পর গ্রামের কয়েকজন সমাজপতি নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে তাঁদের সঙ্গে অন্যদের মেলামেশা না করতে বলেন। এটা প্রকাশ্য কোনো ঘোষণা ছিল না বলে অনেকেই মিশতেন, আবার অনেকেই মিশতেন না।

নূর-ই-আলমের ভাষ্য, তাঁর করা মা’মলার তিনজন সাক্ষীর একজন গ্রামের দরিদ্র কৃষক সিরাজুল ইসলাম স্ত্রী সাবিনা খাতুন। গত ২২ নভেম্বর গ্রামের সমাজপতিরা সাবিনার বাড়িতে গিয়ে সাক্ষী হওয়ার কারণ জানতে চান এবং এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মা’রামারি হয়। তখন সিরাজুলের পরিবারের সঙ্গে না মিশতে গ্রামের লোকজনকে বলে দেন সমাজপতিরা। সর্বশেষ গত ৮ ডিসেম্বর সমাজপতিরা গ্রামে সভা করে আনুষ্ঠানিকভাবে দুটি পরিবারকে একঘরে করে দেন। ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন চাঁদ আলী। সভার সিদ্ধান্ত পরের দিন বাড়ি বাড়ি জানিয়ে দেওয়া হয়।

আইনজীবীর করা মা’মলার আ’সামি মহিদুল ইসলামের ভাষ্য, তাঁদের বি’রুদ্ধে মি’থ্যা মা’মলা দেওয়া হয়েছে। সমাজের সবাই এর প্র’তিবাদ করেছেন। যাঁরা সমাজ মানেন না, তাঁদের সমাজের বাইরে রাখা হয়েছে। সমাজের লোকজন টাকা তুলে আইনজীবীর বি’রুদ্ধে মা’মলা লড়বেন বলে সমাজপতিদের সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আইনজীবীর করা মা’মলার সাক্ষী সাবিনা খাতুনের ভাষ্য, সমাজের লোকজনের দা’য়ের করা মা’মলায় তাঁর স্বামী-স’ন্তানকে পুলিশ গ্রে’প্তার করেছিল। পরে তাঁরা জা’মিন পেয়েছেন। তাঁর স্বামী অন্যের জমিতে কৃষিকাজ করেন, এখন তাঁকে কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ ছাড়া তিনি নিজে বাড়িতে ১২টি বাচ্চাকে পড়াতেন, তাদেরও আর পাঠাচ্ছেন না অভিভাবকেরা। অর্থক’ষ্টে পড়েছেন তাঁরা।

যাঁর সভাপতিত্বে সমাজপতিদের সভা হয়, সেই চাঁদ আলী মুঠোফোনে একঘরে করার কারণ হিসেবে বলেন, ‘ওই দুই পরিবারের লোকজন অন্যদের সঙ্গে মিশতে চান না। তাই তাঁরা সমাজচ্যুত আছেন।’

একই সভায় উপস্থিত আরেক সমাজপতি বলেন, ‘তাঁরা (নূর ও সিরাজুলের পরিবার) সমাজ মানতে চান না। যে কারণে লোকজন সভা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।’ তাঁর দাবি, তিনি একঘরে করার পক্ষে ছিলেন না, তারপরও সবার ইচ্ছায় এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে উভ’য় পক্ষ একসঙ্গে বসলে স’মস্যার সমাধান হবে বলে তিনি মনে করেন।

এ ব্যাপারে মহেশপুর উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাশ্বতী শীল বলেন, বি’ষয়টি তাঁর জানা নেই। কেউ তাঁর কাছে এমন কোনো অ’ভিযোগ দেননি। অ’ভিযোগ দিলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সুত্রঃ প্রথম আলো